বায়ুমণ্ডলের ধারণা উপাদান

 

মাধ্যমিক দশম শ্রেণীর ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর |

West Bengal Madhyamik Class 10th Geography Question and Answer 

বায়ুমণ্ডলের ধারণা উপাদান (বায়ুমণ্ডল – দ্বিতীয় অধ্যায়)  

MCQ | বায়ুমণ্ডলের ধারণা উপাদান (বায়ুমণ্ডল – দ্বিতীয় অধ্যায়)  er :

  1. ভূপৃষ্ঠ থেকে ঊর্ধ্বে বায়ুমণ্ডলের বিস্তার প্রায়

(A) ৫০০০ কিমি . পর্যন্ত

(B) ৭০০০ কিমি . পর্যন্ত

(C) ৯০০০ কিমি . পর্যন্ত

(D) ১০,০০০ কিমি . পর্যন্ত

Ans: (D) ১০,০০০ কিমি . পর্যন্ত

  1. বায়ুমণ্ডলের ৯৭ % পদার্থই অবস্থান করে ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায়—

(A) ২৯–৫০ কিমির মধ্যে 

(B) ০–২৯ কিমির মধ্যে 

(C) ৫০-৮০ কিমির মধ্যে

(D) ৮০-১০০ কিমির মধ্যে

Ans: (B) ০–২৯ কিমির মধ্যে

  1. বায়ুমণ্ডলীয় গ্যাসীয় উপাদানের মধ্যে সর্বাধিক পরিমাণে থাকে –

(A) নাইট্রোজেন

(B) অক্সিজেন

(C) কার্বন ডাইঅক্সাইড

(D) হাইড্রোজেন

Ans: (A) নাইট্রোজেন

  1. বায়ুমণ্ডলীয় উপাদানগুলির মধ্যে নাইট্রোজেনের পরিমাণ প্রায় –

(A) ২০.৯৫ %

(B) ৭৮.০৯ %

(C) ০.০৩ %

(D) ০.৯৩ %

Ans: (B) ৭৮.০৯ %

  1. বায়ুমণ্ডলে প্রায় ২০.৯৫ % পরিমাণে আছে –

(A) NO² 

(B) CO² 

(C) O²

(D) He

Ans: (C) O²

  1. কোন্‌টি নিষ্ক্রিয় গ্যাস –

(A) NO² 

(B) CO₂

(C) Ne

(D) O² 

Ans: (C) Ne

  1. বায়ুমণ্ডলে CO2 গ্যাস উপস্থিত আছে প্রায় –

(A) ০.০৩ %

(B) ০.৯৩ %

(C) ০.০০১৮ %

(D) ২০.৯৩ %

Ans: (A) ০.০৩ %

  1. একটি গ্রিনহাউস গ্যাস হল –

(A) NO² 

(B) CO² 

(C) H²

(D) O² 

Ans: (B) CO²

  1. ট্রপোস্ফিয়ারের উচ্চতা বৃদ্ধির সঙ্গে উন্নতা বাড়ে প্রতি ১ কিমি . তে– 

(A) ৩.৪ ° C 

(B) 8.8 ° C 

(C) ৫.৪ ° C

(D) ৬.৪ ° C 

Ans: (D) ৬.৪ ° C

  1. বায়ুমণ্ডলের ৯০ – ২০০ কিমি উচ্চতায় হেটেরোস্ফিয়ারের কোন্ স্তরটি অবস্থিত ?

(A) আণবিক নাইট্রোজেন 

(B) হিলিয়াম

(C) পারমাণবিক অক্সিজেন

(D) হাইড্রোজেন

Ans: (A) আণবিক নাইট্রোজেন

অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর | বায়ুমণ্ডলের ধারণা উপাদান (বায়ুমণ্ডল – দ্বিতীয় অধ্যায়) মাধ্যমিক ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর | Madhyamik Geography Bayumondal Er Dharona Upadan Question and Answer :

  1. বায়ুমণ্ডলের বিস্তার সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে কতদূর ?

Ans: সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ঊর্ধ্বে ১০,০০০ কিমি পর্যন্ত । 

  1. কোন্ গ্যাস সূর্য থেকে আগত ক্ষতিকারক অতিবেগুনি রশ্মি শোষণ করে নেয় ? 

Ans: ওজোন গ্যাস ( O³ ) . 

  1. বায়ুমণ্ডলে কোন গ্যাসের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি ?

Ans: নাইট্রোজেন গ্যাস ( ৭৮.০৮ % ) ।

  1. বায়ুমণ্ডলের কোন উপাদানের উপস্থিতির ফলে আকাশের রং নীল হয় ?

Ans: ধূলিকণা ।

  1. কোন্ জলবায়ু অঞ্চলে জলীয় বাষ্পের সর্বাধিক উপস্থিতি & লক্ষ করা যায় ?

Ans: ক্রান্তীয় অঞ্চলে ( প্রায় ৪ % ) ।

  1. যে – সমস্ত গ্যাসীয় উপাদান বাতাসে সমঅনুপাতে সর্বদা উপস্থিত থাকে , তাকে কী বলে ?

Ans: স্থায়ী গ্যাসীয় উপাদান বলে ।

  1. বাতাসের স্থায়ী গ্যাসীয় উপাদানগুলির নাম লেখো ।

Ans: নাইট্রোজেন , অক্সিজেন , হাইড্রোজেন , মিথেন , জেনন , ক্রিপটন ইত্যাদি ।

  1. যে – সমস্ত গ্যাসীয় উপাদানের উপস্থিতি সময় ও স্থান বিশেষে পরিবর্তিত হয় , তাকে কী বলে ? 

Ans: অস্থায়ী উপাদানগুলি ।

  1. বায়ুমণ্ডলের অস্থায়ী উপাদানগুলি কী কী ?

Ans: জলীয় বাষ্প , ধূলিকণা , কার্বন ডাইঅক্সাইড ও অন্যান্য বিষাক্ত গ্যাস ।

  1. কোন গ্যাস উদ্ভিদের সালোকসংশ্লেষ ঘটাতে সাহায্য করে ?

Ans: কার্বন ডাইঅক্সাইড । 

সংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর | বায়ুমণ্ডলের ধারণা উপাদান (বায়ুমণ্ডল – দ্বিতীয় অধ্যায়) মাধ্যমিক ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর | Madhyamik Geography Bayumondal Er Dharona Upadan Question and Answer : 

  1. বায়ুমণ্ডল ( Atmosphere ) কাকে বলে ? 

Ans: ভূপৃষ্ঠের যে অদৃশ্য গ্যাসীয় আবরণ , অতি সুক্ষ্ম ধূলিকণা ও জলীয় বাষ্প পৃথিবীকে বেষ্টন করে আছে , তাকে বায়ুমণ্ডল বলে । পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ শক্তির প্রভাবেই বায়ুমণ্ডল পৃথিবীর গায়ে লেগে আছে এবং পৃথিবীর সাথেই আবর্তিত হয়ে চলেছে ।

  1. ” বায়ুমণ্ডলের প্রধান দুটি গ্যাসীয় উপাদানের নাম লেখো ।

Ans: বায়ুমণ্ডলের প্রধান দুটি গ্যাসীয় উপাদান হল অক্সিজেন এবং নাইট্রোজেন । 

  1. বায়ুমণ্ডলের নিষ্ক্রিয় গ্যাসগুলি কী কী ?

Ans: বায়ুমণ্ডলের নিষ্ক্রিয় গ্যাসগুলি হল নিয়ন ( Ne ) , হিলিয়াম ( He ) , জেনন ( Xe ) ও ক্রিপটন ( Kr ) ।

  1. বায়ুমণ্ডলের পরিবর্তনশীল গ্যাসীয় উপাদানগুলি কী কী ?

Ans: বায়ুমণ্ডলের পরিবর্তনশীল গ্যাসীয় উপাদানগুলি হল— জলীয়বাষ্প , কার্বন ডাইঅক্সাইড , মিথেন , কার্বন মনোক্সাইড , ওজোন , সালফার ডাইঅক্সাইড এবং নাইট্রোজেন ডাইঅক্সাইড ।

  1. অ্যারোসল ( Aerosol ) কী ?

Ans: বায়ুমণ্ডলে ভাসমান সূক্ষ্ম ধূলিকণাকে অ্যারোসল বলে । অ্যারোসলকে আশ্রয় করেই জলীয় বাষ্প বাতাসে ভেসে বেড়ায় ।

  1. অ্যারোসলের উৎসগুলি কী কী ?

Ans: অ্যারোসলের উৎসগুলি হল ধূলিকণা , আগ্নেয়গিরির ছাই ও সমুদ্রের লবণকণা ইত্যাদি ।

  1. এ গ্রিনহাউস গ্যাসগুলির নাম লেখো ।

Ans: বায়ুমণ্ডলের গ্রিনহাউস গ্যাসগুলি হল কার্বন ডাইঅক্সাইড ( CO2 ) , কার্বন মনোক্সাইড ( CO ) , মিথেন ( CH4 ) , নাইট্রাস অক্সাইড ( N2O ) , ক্লোরোফ্লুরোকার্বন ( CFC ) , জলীয় বাষ্প ইত্যাদি ।

সংক্ষিপ্ত ব্যাখ্যাধর্মী প্রশ্নোত্তর | বায়ুমণ্ডলের ধারণা উপাদান (বায়ুমণ্ডল – দ্বিতীয় অধ্যায়) মাধ্যমিক ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর | Madhyamik Geography Bayumondal Er Dharona Upadan Question and Answer : 

  1. বায়ুমণ্ডলের গুরুত্ব কী ?

Ans: বায়ুমণ্ডলের গুরুত্ব হল : ( i ) বায়ুমণ্ডলের বায়বীয় উপাদান C জীবমণ্ডলকে বাঁচিয়ে রেখেছে । ( ii ) এই অংশ সৌরশক্তির কুপরিবাহী বলে পৃথিবীর গড় উন্নতা ১৫ ° সে যা জীবকুল গড়ে ওঠার সহায়ক । ( iii ) সূর্যের ক্ষতিকারক বস্তু এখানেই শোষিত হয় । ( iv ) আবহাওয়ার ঘটনা প্রক্রিয়া ( বায়ুপ্রবাহ , ঘনীভবন , বৃষ্টিপাত ইত্যাদি ) বায়ুমণ্ডলেই ঘটে এবং ( v ) বায়ুর ঘনত্ব বায়ুচাপকে নিয়ন্ত্রণ করে । অতএব = বায়ুমণ্ডল না – থাকলে পৃথিবীতে প্রাণের স্পন্দন ঘটত না ।

  1. বায়ুমণ্ডলের উপাদানগুলি কী কী ?

Ans: বায়ুমণ্ডল হল বিভিন্ন গ্যাসের যান্ত্রিক মিশ্রণ । এ ছাড়াও বায়ুমণ্ডলে রয়েছে জলীয় বাষ্প এবং জৈব এবং অজৈব উপাদান । সুতরাং বায়ুমণ্ডল তিনটি উপাদান নিয়ে গঠিত । 

( i ) গ্যাসীয় উপাদান : বায়ুমণ্ডলের বিভিন্ন গ্যাসের মধ্যে নাইট্রোজেন , অক্সিজেন , আর্গন ও কার্বন ডাইঅক্সাইড — এই চারটি গ্যাস ৯৯.৯৯ % অধিকার করে আছে । এর মধ্যে নাইট্রোজেন ও অক্সিজেনের পরিমাণ যথাক্রমে ৭৮.০৮ % এবং ২০.৯০ % । 

( ii ) জলীয় বাষ্প : এটি বায়ুমণ্ডলের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান । ভূপৃষ্ঠের জল বাষ্পীভূত হয়ে বায়ুমণ্ডলে অবস্থান করে এবং মোট জলীয় বাষ্পের ৯০ % থাকে ভূপৃষ্ঠ থেকে ৬ কিমি – এর মধ্যে । 

(iii) অজৈব উপাদান : বায়ুমণ্ডলের বিভিন্ন 6 ও অজৈব কণাকে ধূলিকণা বা Aerosol বলে । ধূলিকণাকে আশ্রয় করেই জলীয় বাষ্প বাতাসে ভেসে বেড়ায় ।

  1. বায়ুমণ্ডলে অক্সিজেনের গুরুত্ব কী ?

Ans: বায়ুমণ্ডলে অক্সিজেনের গুরুত্বগুলি হল ( i ) মানুষ , জীবজগৎ , উদ্ভিদের প্রশ্বাসকার্যে সাহায্য করে । ( ii ) দহন কার্যে অক্সিজেন ব্যবহৃত হয় । ( iii ) মানুষ , ও অন্যান্য প্রাণীদেহে শক্তি ও উত্তাপ বাড়াতে সাহায্য করে । ( iv ) রাসায়নিক আবহবিকার অক্সিডেশনে সাহায্য করে । ( v ) পর্বত আরোহণের সময় বা বিমানযাত্রায় ; টানেল পথে অক্সিজেন অভাবে শারীরিক অসুস্থতা বৃদ্ধি পায় ।

  1. বায়ুমণ্ডলে নাইট্রোজেনের গুরুত্ব লেখো ।

Ans: বায়ুমণ্ডলে নাইট্রোজেনের পরিমাণ সর্বাধিক হলেও বায়ুমণ্ডলে রাসায়নিক বিক্রিয়ায় এর কোনো ভূমিকা নেই । মানুষ এবং অধিকাংশ উদ্ভিদ ও প্রাণী গ্যাসীয় অবস্থায় নাইট্রোজেন ব্যবহার করতে পারে না । কিন্তু কিছু ব্যাকটেরিয়া উদ্ভিদ ও সূক্ষ্ম সামুদ্রিক জীব বাতাসের নাইট্রোজেনকে সরাসরি নাইট্রেটে পরিণত করতে পারে । নাইট্রোজেন রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে উদ্ভিদের গ্রহণযোগ্য খাদ্যে পরিণত হয় । মাটির ব্যাকটেরিয়া ও শুঁটি জাতীয় উদ্ভিদ নাইট্রোজেন গ্রহণ করে মাটির উর্বরতা বৃদ্ধি করে । বায়ুর N , রাসায়নিক সার উৎপাদনে ব্যবহৃত হয় ।

  1. বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাইঅক্সাইড এর গুরুত্ব লেখো ।

Ans: বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাইঅক্সাইডের গুরুত্ব হল – ( i ) কার্বন ডাইঅক্সাইড সূর্য ও পৃথিবী থেকে আগত উত্তাপ শোষণ করে । ( ii ) উদ্ভিদের সালোকসংশ্লেষে সাহায্য করে । লেখো । ( iii ) কার্বন ডাইঅক্সাইড পৃথিবীর তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে । ( iv ) রাসায়নিক আবহবিকার কার্বনেশান ঘটাতে সাহায্য করে । ( v ) গ্রিনহাউস এফেক্ট সৃষ্টিতে বর্তমানে কার্বন ডাইঅক্সাইডের ভূমিকা সর্বাধিক বৃদ্ধি পেয়ে পৃথিবীতে বিপর্যয়ের সূচনা ঘটছে ।

  1. বায়ুমণ্ডলে জলীয় বাষ্পের গুরুত্ব লেখো ।

Ans: বায়ুমণ্ডলে জলীয় বাষ্পের গুরুত্ব হল : ( i ) সূর্য থেকে আগত ক্ষুদ্রতর তরঙ্গকে জলীয় বাষ্প শোষণ করে এবং দীর্ঘতর বিকিরিত তাপকে বাধা দিয়ে নীচের স্তরকে উত্তপ্ত করে । ( ii ) ঊর্ধ্বাকাশে জলীয় বাষ্প ঘনীভূত হয়ে সৃষ্ট লীনতাপ আবহাওয়ার পরিবর্তন ঘটায় । ( iii ) জলীয় বাষ্প ঘনীভূত হয়েই মেঘ , কুয়াশা , শিশির , তুহিন , বৃষ্টি , তুষার সৃষ্টি হয় ।

  1. অ্যারোসল বা ধূলিকণার উৎসগুলি কী কী ?

Ans: অ্যারোসল বা ধূলিকণার উৎস হল : ( i ) বিকিরিত তাপশক্তিকে ধূলিকণা শোষণ করে বায়ুমণ্ডলকে উত্তপ্ত করে । ( ii ) জলীয়বাষ্প ধূলিকণাকে আশ্রয় করে ভেসে বেড়ায় বলেই মেঘ , কুয়াশা , বৃষ্টি প্রভৃতি ঘটাতে পরোক্ষভাবে এর গুরুত্ব অপরিসীম । ( iii ) ধূলিকণায় বিচ্ছুরিত আলোর প্রভাবেই আকাশের রং নীল । ( iv ) উষা ও গোধূলির সৃষ্টি ধূলিকণার উপস্থিতির কারণেই হয় ।

======================================================================

বায়ুমণ্ডলের ধারণা উপাদান (বায়ুমণ্ডল – দ্বিতীয় অধ্যায়)    

অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর | বায়ুমণ্ডলের ধারণা উপাদান (বায়ুমণ্ডল – দ্বিতীয় অধ্যায়) – মাধ্যমিক ভূগোল সাজেশন | Madhyamik Geography Suggestion :

  1. কোন্ জলবায়ু অঞ্চলে জলীয় বাষ্পের সর্বাধিক উপস্থিতি & লক্ষ করা যায় ?

Answer : ক্রান্তীয় অঞ্চলে ( প্রায় ৪ % ) ।

  1. যে – সমস্ত গ্যাসীয় উপাদান বাতাসে সমঅনুপাতে সর্বদা উপস্থিত থাকে , তাকে কী বলে ?

Answer : স্থায়ী গ্যাসীয় উপাদান বলে ।

  1. বাতাসের স্থায়ী গ্যাসীয় উপাদানগুলির নাম লেখো ।

Answer : নাইট্রোজেন , অক্সিজেন , হাইড্রোজেন , মিথেন , জেনন , ক্রিপটন ইত্যাদি ।

  1. যে – সমস্ত গ্যাসীয় উপাদানের উপস্থিতি সময় ও স্থান বিশেষে পরিবর্তিত হয় , তাকে কী বলে ? 

Answer : অস্থায়ী উপাদানগুলি ।

  1. বায়ুমণ্ডলের অস্থায়ী উপাদানগুলি কী কী ?

Answer : জলীয় বাষ্প , ধূলিকণা , কার্বন ডাইঅক্সাইড ও অন্যান্য বিষাক্ত গ্যাস ।

  1. কোন গ্যাস উদ্ভিদের সালোকসংশ্লেষ ঘটাতে সাহায্য করে ?

Answer : কার্বন ডাইঅক্সাইড । 

  1. বায়ুমণ্ডলের বিস্তার সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে কতদূর ?

Answer : সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ঊর্ধ্বে ১০,০০০ কিমি পর্যন্ত । 

  1. কোন্ গ্যাস সূর্য থেকে আগত ক্ষতিকারক অতিবেগুনি রশ্মি শোষণ করে নেয় ? 

Answer : ওজোন গ্যাস ( O³ ) . 

  1. বায়ুমণ্ডলে কোন গ্যাসের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি ?

Answer : নাইট্রোজেন গ্যাস ( ৭৮.০৮ % ) ।

  1. বায়ুমণ্ডলের কোন উপাদানের উপস্থিতির ফলে আকাশের রং নীল হয় ?

Answer : ধূলিকণা ।

MCQ | বায়ুমণ্ডলের ধারণা উপাদান (বায়ুমণ্ডল – দ্বিতীয় অধ্যায়) – মাধ্যমিক ভূগোল সাজেশন | Madhyamik Geography Suggestion :

  1. কোন্‌টি নিষ্ক্রিয় গ্যাস -(A) NO² (B) CO₂(C) Ne(D) O² 

Answer : (C) Ne

  1. বায়ুমণ্ডলে CO2 গ্যাস উপস্থিত আছে প্রায় -(A) ০.০৩ %(B) ০.৯৩ %(C) ০.০০১৮ %(D) ২০.৯৩ %

Answer : (A) ০.০৩ %

  1. একটি গ্রিনহাউস গ্যাস হল -(A) NO² (B) CO² (C) H²(D) O² 

Answer : (B) CO²

  1. ট্রপোস্ফিয়ারের উচ্চতা বৃদ্ধির সঙ্গে উন্নতা বাড়ে প্রতি ১ কিমি . তে– (A) ৩.৪ ° C (B) 8.8 ° C (C) ৫.৪ ° C(D) ৬.৪ ° C 

Answer : (D) ৬.৪ ° C

  1. বায়ুমণ্ডলের ৯০ – ২০০ কিমি উচ্চতায় হেটেরোস্ফিয়ারের কোন্ স্তরটি অবস্থিত ?(A) আণবিক নাইট্রোজেন (B) হিলিয়াম(C) পারমাণবিক অক্সিজেন(D) হাইড্রোজেন

Answer : (A) আণবিক নাইট্রোজেন

  1. ভূপৃষ্ঠ থেকে ঊর্ধ্বে বায়ুমণ্ডলের বিস্তার প্রায়(A) ৫০০০ কিমি . পর্যন্ত(B) ৭০০০ কিমি . পর্যন্ত(C) ৯০০০ কিমি . পর্যন্ত(D) ১০,০০০ কিমি . পর্যন্ত

Answer : (D) ১০,০০০ কিমি . পর্যন্ত

  1. বায়ুমণ্ডলের ৯৭ % পদার্থই অবস্থান করে ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায়—(A) ২৯–৫০ কিমির মধ্যে (B) ০–২৯ কিমির মধ্যে (C) ৫০-৮০ কিমির মধ্যে(D) ৮০-১০০ কিমির মধ্যে

Answer : (B) ০–২৯ কিমির মধ্যে

  1. বায়ুমণ্ডলীয় গ্যাসীয় উপাদানের মধ্যে সর্বাধিক পরিমাণে থাকে -(A) নাইট্রোজেন(B) অক্সিজেন(C) কার্বন ডাইঅক্সাইড(D) হাইড্রোজেন

Answer : (A) নাইট্রোজেন

  1. বায়ুমণ্ডলীয় উপাদানগুলির মধ্যে নাইট্রোজেনের পরিমাণ প্রায় -(A) ২০.৯৫ %(B) ৭৮.০৯ %(C) ০.০৩ %(D) ০.৯৩ %

Answer : (B) ৭৮.০৯ %

  1. বায়ুমণ্ডলে প্রায় ২০.৯৫ % পরিমাণে আছে -(A) NO² (B) CO² (C) O²(D) He

Answer : (C) O²

সংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর | বায়ুমণ্ডলের ধারণা উপাদান (বায়ুমণ্ডল – দ্বিতীয় অধ্যায়) – মাধ্যমিক ভূগোল সাজেশন | Madhyamik Geography Suggestion : 

  1. বায়ুমণ্ডলের পরিবর্তনশীল গ্যাসীয় উপাদানগুলি কী কী ?

Answer : বায়ুমণ্ডলের পরিবর্তনশীল গ্যাসীয় উপাদানগুলি হল— জলীয়বাষ্প , কার্বন ডাইঅক্সাইড , মিথেন , কার্বন মনোক্সাইড , ওজোন , সালফার ডাইঅক্সাইড এবং নাইট্রোজেন ডাইঅক্সাইড ।

  1. অ্যারোসল ( Aerosol ) কী ?

Answer : বায়ুমণ্ডলে ভাসমান সূক্ষ্ম ধূলিকণাকে অ্যারোসল বলে । অ্যারোসলকে আশ্রয় করেই জলীয় বাষ্প বাতাসে ভেসে বেড়ায় ।

  1. অ্যারোসলের উৎসগুলি কী কী ?

Answer : অ্যারোসলের উৎসগুলি হল ধূলিকণা , আগ্নেয়গিরির ছাই ও সমুদ্রের লবণকণা ইত্যাদি ।

  1. এ গ্রিনহাউস গ্যাসগুলির নাম লেখো ।

Answer : বায়ুমণ্ডলের গ্রিনহাউস গ্যাসগুলি হল কার্বন ডাইঅক্সাইড ( CO2 ) , কার্বন মনোক্সাইড ( CO ) , মিথেন ( CH4 ) , নাইট্রাস অক্সাইড ( N2O ) , ক্লোরোফ্লুরোকার্বন ( CFC ) , জলীয় বাষ্প ইত্যাদি ।

  1. বায়ুমণ্ডল ( Atmosphere ) কাকে বলে ? 

Answer : ভূপৃষ্ঠের যে অদৃশ্য গ্যাসীয় আবরণ , অতি সুক্ষ্ম ধূলিকণা ও জলীয় বাষ্প পৃথিবীকে বেষ্টন করে আছে , তাকে বায়ুমণ্ডল বলে । পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ শক্তির প্রভাবেই বায়ুমণ্ডল পৃথিবীর গায়ে লেগে আছে এবং পৃথিবীর সাথেই আবর্তিত হয়ে চলেছে ।

  1. ” বায়ুমণ্ডলের প্রধান দুটি গ্যাসীয় উপাদানের নাম লেখো ।

Answer : বায়ুমণ্ডলের প্রধান দুটি গ্যাসীয় উপাদান হল অক্সিজেন এবং নাইট্রোজেন । 

  1. বায়ুমণ্ডলের নিষ্ক্রিয় গ্যাসগুলি কী কী ?

Answer : বায়ুমণ্ডলের নিষ্ক্রিয় গ্যাসগুলি হল নিয়ন ( Ne ) , হিলিয়াম ( He ) , জেনন ( Xe ) ও ক্রিপটন ( Kr ) ।

সংক্ষিপ্ত ব্যাখ্যাধর্মী প্রশ্নোত্তর | বায়ুমণ্ডলের ধারণা উপাদান (বায়ুমণ্ডল – দ্বিতীয় অধ্যায়) – মাধ্যমিক ভূগোল সাজেশন | Madhyamik Geography Suggestion : 

  1. বায়ুমণ্ডলে নাইট্রোজেনের গুরুত্ব লেখো ।

Answer : বায়ুমণ্ডলে নাইট্রোজেনের পরিমাণ সর্বাধিক হলেও বায়ুমণ্ডলে রাসায়নিক বিক্রিয়ায় এর কোনো ভূমিকা নেই । মানুষ এবং অধিকাংশ উদ্ভিদ ও প্রাণী গ্যাসীয় অবস্থায় নাইট্রোজেন ব্যবহার করতে পারে না । কিন্তু কিছু ব্যাকটেরিয়া উদ্ভিদ ও সূক্ষ্ম সামুদ্রিক জীব বাতাসের নাইট্রোজেনকে সরাসরি নাইট্রেটে পরিণত করতে পারে । নাইট্রোজেন রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে উদ্ভিদের গ্রহণযোগ্য খাদ্যে পরিণত হয় । মাটির ব্যাকটেরিয়া ও শুঁটি জাতীয় উদ্ভিদ নাইট্রোজেন গ্রহণ করে মাটির উর্বরতা বৃদ্ধি করে । বায়ুর N , রাসায়নিক সার উৎপাদনে ব্যবহৃত হয় ।

  1. বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাইঅক্সাইড এর গুরুত্ব লেখো ।

Answer : বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাইঅক্সাইডের গুরুত্ব হল – ( i ) কার্বন ডাইঅক্সাইড সূর্য ও পৃথিবী থেকে আগত উত্তাপ শোষণ করে । ( ii ) উদ্ভিদের সালোকসংশ্লেষে সাহায্য করে । লেখো । ( iii ) কার্বন ডাইঅক্সাইড পৃথিবীর তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে । ( iv ) রাসায়নিক আবহবিকার কার্বনেশান ঘটাতে সাহায্য করে । ( v ) গ্রিনহাউস এফেক্ট সৃষ্টিতে বর্তমানে কার্বন ডাইঅক্সাইডের ভূমিকা সর্বাধিক বৃদ্ধি পেয়ে পৃথিবীতে বিপর্যয়ের সূচনা ঘটছে ।

  1. বায়ুমণ্ডলে জলীয় বাষ্পের গুরুত্ব লেখো ।

Answer : বায়ুমণ্ডলে জলীয় বাষ্পের গুরুত্ব হল : ( i ) সূর্য থেকে আগত ক্ষুদ্রতর তরঙ্গকে জলীয় বাষ্প শোষণ করে এবং দীর্ঘতর বিকিরিত তাপকে বাধা দিয়ে নীচের স্তরকে উত্তপ্ত করে । ( ii ) ঊর্ধ্বাকাশে জলীয় বাষ্প ঘনীভূত হয়ে সৃষ্ট লীনতাপ আবহাওয়ার পরিবর্তন ঘটায় । ( iii ) জলীয় বাষ্প ঘনীভূত হয়েই মেঘ , কুয়াশা , শিশির , তুহিন , বৃষ্টি , তুষার সৃষ্টি হয় ।

  1. অ্যারোসল বা ধূলিকণার উৎসগুলি কী কী ?

Answer : অ্যারোসল বা ধূলিকণার উৎস হল : ( i ) বিকিরিত তাপশক্তিকে ধূলিকণা শোষণ করে বায়ুমণ্ডলকে উত্তপ্ত করে । ( ii ) জলীয়বাষ্প ধূলিকণাকে আশ্রয় করে ভেসে বেড়ায় বলেই মেঘ , কুয়াশা , বৃষ্টি প্রভৃতি ঘটাতে পরোক্ষভাবে এর গুরুত্ব অপরিসীম । ( iii ) ধূলিকণায় বিচ্ছুরিত আলোর প্রভাবেই আকাশের রং নীল । ( iv ) উষা ও গোধূলির সৃষ্টি ধূলিকণার উপস্থিতির কারণেই হয় ।

  1. বায়ুমণ্ডলের গুরুত্ব কী ?

Answer : বায়ুমণ্ডলের গুরুত্ব হল : ( i ) বায়ুমণ্ডলের বায়বীয় উপাদান C জীবমণ্ডলকে বাঁচিয়ে রেখেছে । ( ii ) এই অংশ সৌরশক্তির কুপরিবাহী বলে পৃথিবীর গড় উন্নতা ১৫ ° সে যা জীবকুল গড়ে ওঠার সহায়ক । ( iii ) সূর্যের ক্ষতিকারক বস্তু এখানেই শোষিত হয় । ( iv ) আবহাওয়ার ঘটনা প্রক্রিয়া ( বায়ুপ্রবাহ , ঘনীভবন , বৃষ্টিপাত ইত্যাদি ) বায়ুমণ্ডলেই ঘটে এবং ( v ) বায়ুর ঘনত্ব বায়ুচাপকে নিয়ন্ত্রণ করে । অতএব = বায়ুমণ্ডল না – থাকলে পৃথিবীতে প্রাণের স্পন্দন ঘটত না ।

  1. বায়ুমণ্ডলের উপাদানগুলি কী কী ?

Answer : বায়ুমণ্ডল হল বিভিন্ন গ্যাসের যান্ত্রিক মিশ্রণ । এ ছাড়াও বায়ুমণ্ডলে রয়েছে জলীয় বাষ্প এবং জৈব এবং অজৈব উপাদান । সুতরাং বায়ুমণ্ডল তিনটি উপাদান নিয়ে গঠিত । 

( i ) গ্যাসীয় উপাদান : বায়ুমণ্ডলের বিভিন্ন গ্যাসের মধ্যে নাইট্রোজেন , অক্সিজেন , আর্গন ও কার্বন ডাইঅক্সাইড — এই চারটি গ্যাস ৯৯.৯৯ % অধিকার করে আছে । এর মধ্যে নাইট্রোজেন ও অক্সিজেনের পরিমাণ যথাক্রমে ৭৮.০৮ % এবং ২০.৯০ % । 

( ii ) জলীয় বাষ্প : এটি বায়ুমণ্ডলের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান । ভূপৃষ্ঠের জল বাষ্পীভূত হয়ে বায়ুমণ্ডলে অবস্থান করে এবং মোট জলীয় বাষ্পের ৯০ % থাকে ভূপৃষ্ঠ থেকে ৬ কিমি – এর মধ্যে । 

(iii) অজৈব উপাদান : বায়ুমণ্ডলের বিভিন্ন 6 ও অজৈব কণাকে ধূলিকণা বা Aerosol বলে । ধূলিকণাকে আশ্রয় করেই জলীয় বাষ্প বাতাসে ভেসে বেড়ায় ।

  1. বায়ুমণ্ডলে অক্সিজেনের গুরুত্ব কী ?

Answer : বায়ুমণ্ডলে অক্সিজেনের গুরুত্বগুলি হল ( i ) মানুষ , জীবজগৎ , উদ্ভিদের প্রশ্বাসকার্যে সাহায্য করে । ( ii ) দহন কার্যে অক্সিজেন ব্যবহৃত হয় । ( iii ) মানুষ , ও অন্যান্য প্রাণীদেহে শক্তি ও উত্তাপ বাড়াতে সাহায্য করে । ( iv ) রাসায়নিক আবহবিকার অক্সিডেশনে সাহায্য করে । ( v ) পর্বত আরোহণের সময় বা বিমানযাত্রায় ; টানেল পথে অক্সিজেন অভাবে শারীরিক অসুস্থতা বৃদ্ধি পায় 

©kamaleshforeducation.in(2023)

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *