ভারতের মৃত্তিকা (ভারত – পঞ্চম অধ্যায়)

ভারতের মৃত্তিকা (ভারত – পঞ্চম অধ্যায়)

মাধ্যমিক ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর | Madhyamik Geography  Question and Answer :

MCQ | ভারতের মৃত্তিকা (ভারত – পঞ্চম অধ্যায়) মাধ্যমিক ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর | Madhyamik Geography Bharater Mrittika Question and Answer :

  1. কোন্ মৃত্তিকায় তুলো চাষ ভালো হয় ? 

(A) রেগুর 

(B) পলি

(C) লোহিত মৃত্তিকা

(D) ল্যাটেরাইট 

Ans: (A) রেগুর

  1. ভারতের সমভূমি অঞ্চলে প্রধানত কোন ধরনের মৃত্তিকা দেখা যায় ? 

(A) কৃষ্ণ মৃত্তিকা

(B) মরু মৃত্তিকা

(C) লোহিত মৃত্তিকা

(D) পলি মৃত্তিকা

Ans: (D) পলি মৃত্তিকা

  1. নদীর প্লাবনভূমিতে নবীন পলি দিয়ে গঠিত হয় কোন্ মৃত্তিকা ?

(A) ভাঙ্গার 

(B) খাদার 

(C) ভুর 

(D) উষর

Ans: (B) খাদার 

  1. উচ্চ গাঙ্গেয় সমভূমির নিম্ন অঞ্চলে বালিমিশ্রিত কোন্ মৃত্তিকা দেখা যায় ?

(A) এটেল

(B) ভাঙ্গার

(C) ভুর 

(D) কালার

Ans: (C) ভুর

  1. দাক্ষিণাত্যের লাভাগঠিত মালভূমি অঞ্চলে যে মৃত্তিকা দেখা যায় তা হল – 

(A) লোহিত মৃত্তিকা 

(B) ঊষর মৃত্তিকা

(C) রেগুর মৃত্তিকা

(D) ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা 

Ans: (C) রেগুর মৃত্তিকা

  1. ভারতের কোথায় মরুভূমি গবেষণা কেন্দ্র রয়েছে ?

(A) দিল্লিতে

(B) জয়পুরে

(C) যোধপুরে

(D) আমেদাবাদে

Ans: (C) যোধপুরে

  1. গ্রানাইট ও নিস্ শিলা ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে সৃষ্টি হয় –

(A) ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা

(B) কৃষ্ণ মৃত্তিকা

(C) লোহিত মৃত্তিকা

(D) রেগুর মৃত্তিকা

Ans: C) লোহিত মৃত্তিকা

  1. বালির ভাগ বেশি থাকার জন্য কোন্ মৃত্তিকায় জলধারণ ক্ষমতা কম ? 

(A) কৃষ্ণ

(B) লোহিত

(C) এটেল 

(D) পাললিক

Ans: (B) লোহিত

  1. মৃত্তিকায় অবস্থিত , পরিপূর্ণভাবে বিশ্লিষ্ট জীবদেহবিশেষ কী নামে পরিচিত ?

(A) হিউমাস

(B) কালার

(C) ঊষর 

(D) পিট

Ans: (A) হিউমাস

  1. মরু মৃত্তিকা কী প্রকৃতির হয় ? 

(A) অম্লধর্মী

(B) ক্ষারধর্মী

(C) লবণাক্ত

(D) কোনোটাই নয়

Ans: (B) ক্ষারধর্মী

[ আরোও দেখুন: Madhyamik Geography Suggestion 2023 Click here ]

  1. লাল মাটিতে কীসের পরিমাণ বেশি থাকে ? 

(A) পটাশিয়াম

(B) হিউমাস 

(C) অ্যালুমিনিয়াম

(D) লোহা 

Ans: (D) লোহা

  1. কোন মাটির স্থানীয় নাম ‘ সারাম ’ ?

(A) ল্যাটেরাইট

(B) লোহিত

(C) বেলেমাটি

(D) ভুর

Ans: (A) ল্যাটেরাইট

  1. পডসল মৃত্তিকা দেখতে পাওয়া যায় –

(A) আরাবল্লি পর্বতে

(B) সাতপুরা পর্বতে

(C) বিন্ধ্য পর্বতে

(D) হিমালয় পর্বতে

Ans: (D) হিমালয় পর্বতে

  1. কোন্ মৃত্তিকায় হিউমাসের পরিমাণ বেশি ?

(A) পাললিক 

(B) পডসল

(C) লোহিত মৃত্তিকা 

(D) পাললিক মৃত্তিকা 

Ans: (C) লোহিত মৃত্তিকা

  1. আন্দামান – নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে কোন্ ধরনের মৃত্তিকা দেখা যায় ?

(A) লোহিত মৃত্তিকা 

(B) পিট মৃত্তিকা 

(C) রেগুর মৃত্তিকা 

(D) ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা 

Ans: (D) ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা

  1. উত্তর ভারতের সমভূমি অঞ্চলে নদী উপত্যকার পুরোনো পলিমাটিকে কী বলে ?

(A) ভাঙ্গার

(B) খাদার 

(C) ভুর

(D) বেট

Ans: (A) ভাঙ্গার

  1. তরাই অঞ্চলের মৃত্তিকার অপর নাম হল –

(A) ভাঙ্গার 

(B) খাদার

(C) ঊষর 

(D) ভাবর

Ans: (D) ভাবর

অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর | ভারতের মৃত্তিকা (ভারত – পঞ্চম অধ্যায়) মাধ্যমিক ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর | Madhyamik Geography Bharater Mrittika Question and Answer : 

  1. যে মৃত্তিকায় লোহা ও অ্যালুমিনিয়ামের পরিমাণ বেশি থাকে এবং যার রং বাদামি , লাল বা হলুদ হয় , তাকে কী বলে ?

Ans: পেডালফার মৃত্তিকা ।

  1. যে মৃত্তিকায় চুনের ভাগ বেশি ও রং কালো তাকে কী বলা হয় ?

Ans: পেডোক্যাল মৃত্তিকা ।

  1. গঠন হিসেবে খাদার বা নবীন পলিমাটিকে কী কী ভাগে ভাগ করা যায় ?

Ans: দোআঁশ মাটি , এঁটেল মাটি ও বেলে মাটি ।

  1. যে মাটিতে বালি ও কাদার ভাগ প্রায় সমান হয় তাকে । বলে ?

Ans: দোঁয়াশ মাটি । 

  1. বেলেমাটিতে কোন্ কোন্ ফসলের চাষ হয় ?

Ans: তরমুজ , শশা , আলু ইত্যাদি ।

  1. কৃষ্ণ মৃত্তিকার অপর নাম কী ?

Ans: রেগুর মৃত্তিকা বা কৃষ্ণ কার্পাস মৃত্তিকা ।

  1. কোন্ মৃত্তিকা ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে খোয়াই ভূমিরূপের সৃষ্টি করে ?

Ans: ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা ।

  1. পশ্চিমবঙ্গ ও উত্তরপ্রদেশের তরাই অঞ্চলে কী মৃত্তিকা দেখা যায় ?

Ans: ভাবর । 

  1. উচ্চ গাঙ্গেয় সমভূমির জলাভূমির মৃত্তিকাকে কী বলে ? 

Ans: ধাঙ্কার ।

  1. কৃষ্ণ মৃত্তিকায় কীসের পরিমাণ বেশি থাকে । 

Ans: চুন ও কাদা ।

  1. পার্বত্য অঞ্চলের মৃত্তিকার রং কী ?

Ans: কালো / ধূসর বাদামি ।

  1. ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা প্রকৃতপক্ষে কোন শ্রেণির মৃত্তিকা ?

Ans: লোহিত মৃত্তিকা ।

  1. কোন্ মৃত্তিকার জলধারণ ক্ষমতা সর্বাধিক ।

Ans: কৃষ্ণ মৃত্তিকা ।

  1. নদীর মোহানা অঞ্চলের মৃত্তিকা কী প্রকৃতির হয় ?

Ans: লবণাক্ত ।

  1. মৃত্তিকা ক্ষয়ের সর্বপ্রধান কারণ কী ?

Ans: বৃক্ষচ্ছেদন ।

  1. আর্দ্র অঞ্চলে কীসের দ্বারা মৃত্তিকা ক্ষয় বেশি হয় ?

Ans: জলের দ্বারা ।

  1. ভারতের প্রায় কত জমি প্রতি বছর জলের দ্বারা ক্ষয়প্রাপ্ত হয় ?

Ans: প্রায় ৫৩.৩৪ মিলিয়ন হেক্টর জমি ।

  1. পাহাড়ি অঞ্চলে বিভিন্ন উচ্চতায় ধাপ কেটে যে চাষ করা হয় , তাকে কী বলে ?

Ans: ধাপ চাষ ।

  1. পাহাড়ে জঙ্গল পুড়িয়ে যে চাষ হয় , তাকে কী বলে ? 

Ans: ঝুম চাষ ।

  1. রেগুর শব্দের উৎপত্তি হয় কোন শব্দ থেকে ?

Ans: তেলুগু শব্দ রেগাডা থেকে ( Regada ) .

  1. মরু অঞ্চলের মৃত্তিকার রং কী ?

Ans: বাদামি হলুদ ও হালকা হলুদ আকারে । 

সংক্ষিপ্ত উত্তরভিত্তিক প্রশ্নোত্তর | ভারতের মৃত্তিকা (ভারত – পঞ্চম অধ্যায়) মাধ্যমিক ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর | Madhyamik Geography Bharater Mrittika Question and Answer : 

  1. ধাঙ্কার কাকে বলে ?

Ans: উচ্চ গাঙ্গেয় সমভূমিতে জলাভূমির মৃত্তিকাকে ধাক্কার ( Dhankar ) মৃত্তিকা বলে । 

  1. ভাবর মৃত্তিকা কাকে বলে ? 

Ans: পর্বতের পাদদেশে নুড়ি , পলি ও বালি দ্বারা গঠিত মৃত্তিকাকে ভাবর মৃত্তিকা বলে ।

  1. ভাবর মৃত্তিকা অনুর্বর কেন ? 

Ans: ভাবর মৃত্তিকা নুড়ি , কাকর ও বালি দ্বারা গঠিত হওয়ায় এই মৃত্তিকার জলধারণ ক্ষমতা খুবই কম । তাই এই মৃত্তিকা অত্যন্ত অনুর্বর ।

  1. পলি মৃত্তিকায় কোন কোন ফসল উৎপন্ন হয় ?

Ans: ভারতের পলিমাটিতে প্রায় সব ধরনের কৃষিজ ফসল উৎপাদিত হয় । প্রধান উৎপাদিত ফসল হল ধান , গম , আখ , তৈলবীজ , ডাল , পাট , আলু , শাকসবজি প্রভৃতি ।

  1. পলি মৃত্তিকা অত্যন্ত উর্বর কেন ?

Ans: এই পলি মৃত্তিকায় ফসফরাস ও পটাশিয়ামের পরিমাণ বেশি । অধিকাংশ স্থানে মাটির মধ্যে পলি , কাদা ও বালির ভাগ সমান সমান থাকায় মাটি দোআঁশ জাতীয় বলে জলধারণ ক্ষমতাও বেশ বেশি । তাই ইহা উর্বর । জেনে রাখো 

হিউমাস : মৃত্তিকায় অবস্থিত , পরিপূর্ণভাবে বিশ্লিষ্ট জীবদেহ বিশেষ Humus নামে পরিচিত । এটি মৃত্তিকার গঠন , সচ্ছিদ্রতা , উন্নতা প্রভৃতিকে নিয়ন্ত্রণ করে ।

  1. কৃষ্ণ মৃত্তিকা ভারতের কোথায় কোথায় দেখা যায় ? 

Ans: মহারাষ্ট্র , মধ্যপ্রদেশের পশ্চিম অংশ , গুজরাটের দক্ষিণ , অন্ধ্রপ্রদেশের উত্তর – পশ্চিম , কর্ণাটকের উত্তর ও তামিলনাড়ুর উত্তর অংশের প্রায় ৫.৫০ লক্ষ বর্গকিমি ( ১৭ % ) স্থানজুড়ে কৃষ্ণ মৃত্তিকা বা রেগুর মৃত্তিকা দেখা যায় ।

  1. রেগুর মৃত্তিকা কাকে বলে ?

Ans: দাক্ষিণাত্যের উত্তর – পশ্চিম অংশে লাভা গঠিত ব্যাসল্ট শিলা থেকে উৎপন্ন যে অতি উর্বর কৃষ্ণ মৃত্তিকা দেখা যায় , স্থানীয়ভাবে তাকে ‘ রেগুর ‘ বলে ।

  1. রেগুর মৃত্তিকার রং কালো হয় কেন ?

Ans: ব্যাসল্ট শিলায় আবহবিকারের ফলে সৃষ্ট রেগুর মৃত্তিকায় টাইটানিয়াম অক্সাইডের পরিমাণ খুব বেশি থাকে । এই কারণে রেগুর মৃত্তিকার রং হয় কালো ।

  1. ভুর কাকে বলে ?

Ans: উচ্চ গাঙ্গেয় সমভূমির নিম্ন অঞ্চলে ( বিশেষত উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের পশ্চিমাংশের দোয়ার অঞ্চলে ) বালি মিশ্রিত অতি সূক্ষ্ম মৃত্তিকা গঠিত তরঙ্গায়িত উচ্চভূমি দেখা যায় , যা ‘ ভুর ‘ নামে পরিচিত ।

  1. কৃষ্ণ মৃত্তিকায় কোন্ কোন্ ফসল ভালো জন্মায় ?

Ans: কৃষ্ণ মৃত্তিকা কার্পাস চাষের জন্য অত্যন্ত বিখ্যাত । তাই মাটি ‘ Black cotton Soil ‘ নামে পরিচিত । কার্পাস ছাড়াও এই মাটিতে মিলেট , তৈলবীজ , তামাক , পিঁয়াজ প্রভৃতির চাষ হয় ।

  1. কৃষ্ণ মৃত্তিকাকে ‘ কৃষ্ণকার্পাস মৃত্তিকা ‘ বা ‘ Black Cotton Soil ‘ বলে কেন ?

Ans: কৃষ্ণ মৃত্তিকা বা রেগুর কার্পাস বা তুলা চাষের জন্য উপযোগী বলে , কৃষ্ণ মৃত্তিকাকে ‘ কৃষ্ণ কার্পাস মৃত্তিকা ‘ বা ‘ Black Cotton Soil বলে ।

  1. লোহিত মৃত্তিকা কোথায় কোথায় দেখা যায় ?

Ans: কর্ণাটক , মহারাষ্ট্রের দক্ষিণ – পূর্বাংশ , অন্ধ্রপ্রদেশের পূর্বভাগ , মধ্যপ্রদেশ , ওড়িশা , ঝাড়খণ্ড ও উত্তরপ্রদেশের দক্ষিণ অংশ , পশ্চিমবঙ্গের বীরভূম , বাঁকুড়া জেলায় এবং উত্তর – পূর্বের নাগাল্যান্ড , মণিপুর , মিজোরাম , ত্রিপুরা ও মেঘালয় রাজ্যে লোহিত মৃত্তিকা দেখা যায় ।

  1. লোহিত মৃত্তিকায় কোন্ কোন্ ফসল ভালো জন্মায় ? 

Ans: লোহিত মৃত্তিকা অনুর্বর হলেও মিলেট , বাদাম , ভুট্টা , সোয়াবিন , আঙুর ও কফি উৎপাদনের পক্ষে বিশেষ উপযোগী । জলসেচ ও সার প্রয়োগের মাধ্যমে এই মাটিতে ধান , তৈলবীজ , ডাল প্রভৃতির চাষ করা হয় । HTTO DRA 

  1. ল্যাটেরাইট মৃত্তিকার এইরূপ নামকরণের কারণ কী ? 

Ans: লাতিন ভাষায় ‘ ল্যাটার ‘ ( Later ) শব্দের অর্থ হল ইট । ইটের মতো শক্ত ও লাল রঙের হয় বলে , এই মৃত্তিকার নাম ল্যাটেরাইট ।

  1. ল্যাটেরাইট মৃত্তিকার খনিজ উপাদান কী কী ?

Ans: ল্যাটেরাইট মৃত্তিকার খনিজ উপাদানগুলি হল লোহা , অ্যালুমিনিয়াম , ম্যাঙ্গানিজ অক্সাইড প্রভৃতি ।

  1. পার্বত্য মৃত্তিকা কোথায় কোথায় দেখা যায় ?

Ans: উত্তরে হিমালয় এবং দক্ষিণে নীলগিরি ও পশ্চিমঘাট পর্বতের বনভূমি অঞ্চলে পার্বত্য মৃত্তিকা দেখা যায় । হিমালয়ের উপত্যকা ও অবনমিত অঞ্চলেই এই মৃত্তিকা সবচেয়ে বেশি দেখা যায় ।

  1. পার্বত্য ও অরণ্য মৃত্তিকায় কোন্ কোন্ ফসল ভালো জন্মায় ?

Ans: পার্বত্য মৃত্তিকা অনুর্বর হলেও , চা , কফি , বিভিন্ন মশলা , ফল প্রভৃতি বাগিচা ফসল ভালো জন্মায় ।

  1. মরু ও শুষ্ক মৃত্তিকা ভারতের কোথায় কোথায় দেখা যায় ?

Ans: রাজস্থানের মরুভূমি ও তৎসংলগ্ন পাঞ্জাব , হরিয়ানা | ও গুজরাটের প্রায় ১.৫০ লক্ষ বর্গকিমি অঞ্চলজুড়ে রয়েছে মরু ও শুষ্ক মৃত্তিকা ।

  1. শিট ক্ষয় ও খোয়াই ক্ষয় কাকে বলে ?

Ans: ঢালু জমির ওপর দিয়ে প্রবাহিত জলধারার মাধ্যমে মাটির উপরিস্তরের অপসারণ হল শিট ক্ষয় । ছোটো নালা বড়ো নালায় পরিণত হলে তা হল খোয়াই ক্ষয় । প্রশ্ন ২৯ র‍্যাভাইন ক্ষয় কী ? উত্তর : জলনালিকা ও খোয়াই আরও গভীর খাড়া পাড়যুক্ত গভীর খাত তৈরি করে । একেই বলে র‍্যাভাইন ক্ষয় ।

  1. অপভূমি বা Badland কাকে বলে ?

Ans: খোয়াই ও র‍্যাভাইন ক্ষয়ের মাধ্যমে বিশাল অঞ্চল এবড়োখেবড়ো ও শুষ্ক অনুর্বর ভূমিতে পরিণত হলে তা হল অপভূমি বা ব্যাডল্যান্ড । যেমন— গড়বেতায় অবস্থিত গণগনির ব্যাডল্যান্ড । 

ব্যাখ্যামূলক উত্তরধর্মী প্রশ্নোত্তর | ভারতের মৃত্তিকা (ভারত – পঞ্চম অধ্যায়) মাধ্যমিক ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর | Madhyamik Geography Bharater Mrittika Question and Answer : 

  1. ল্যাটেরাইট মাটি ভারতের কোথায় কোথায় দেখা যায় ? 

Ans: ভারতের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা । এই মৃত্তিকা দেখা যায় পশ্চিমঘাট , পূর্বঘাট , বিন্ধ্য সাতপুরা , রাজমহল প্রভৃতি পাহাড়ি অঞ্চলে এবং কর্ণাটক , অন্ধ্রপ্রদেশ , ওড়িশা , তামিলনাড়ু , ঝাড়খণ্ড , মেঘালয় , পশ্চিমবঙ্গ প্রভৃতি রাজ্যের মালভূমি অঞ্চলে । 

  1. ল্যাটেরাইট মৃত্তিকার উৎপত্তি কীভাবে ঘটেছে ?

Ans: ভারতে প্রাচীন শিলায় ( গ্রানাইট ও নিস ) গঠিত মালভূমি ও প্রাচীন পার্বত্য অঞ্চলে যেখানে উষ্ণতা ও বৃষ্টিপাত উভয়ই বেশি এবং পর্যায়ক্রমে আর্দ্র ও শুষ্ক ঋতু বিরাজ করে সেখানেই । এই মৃত্তিকার সৃষ্টি হয়েছে । অধিক বৃষ্টিপাতের প্রভাবে আবহারিকার গ্রস্ত উচ্চভূমির প্রাচীন শিলাস্তর থেকে এলুভিয়েশান প্রক্রিয়ায় সিলিকা ও অন্যান্য দ্রবণীয় পদার্থ অপসারিত হয় এবং পড়ে থাকে লোহা । অ্যালুমিনিয়াম অক্সাইড ও হাইড্রেক্সাইড এবং সৃষ্টি হয় ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা । 

  1. ল্যাটেরাইট মাটির বৈশিষ্ট্য লেখো ।

Ans: ল্যাটেরাইট মাটির প্রধান বৈশিষ্ট্য হল— ( ১ ) এই মৃত্তিকা লাল , বাদামি ও হলদে বাদামি রঙের হয় । ( ২ ) এই মাটিতে জল থাকলে থকথকে কিন্তু শুকিয়ে গেলে শক্ত ইটের মতো হয়ে যায় । ( লাতিন শব্দ ল্যাটেরাইট এর অর্থ – ইট ‘ ) । ( ৩ ) লোহা , অ্যালুমিনিয়াম , ম্যাঙ্গানিজ অক্সাইড এই মৃত্তিকার প্রধান উপকরণ । ( ৪ ) বড়ো শক্ত দলার বা বিচ্ছিন্ন কাঁকরের মতো পদার্থ দিয়ে এটি সৃষ্ট । ( ৫ ) অন্যান্য খনিজ ও জৈব পদার্থ থাকে না বলে এটি অনুর্বর তাই চাষআবাদ খুব বেশি হয় না । ( ৬ ) ক্ষয়ীভবনের মাধ্যমে উচ্চভূমি থেকে এই মৃত্তিকা সমতলভূমির বিস্তীর্ণ অঞ্চলে সঞ্চিত হয় ।

  1. ল্যাটেরাইট মাটি অনুর্বর কেন ?

Ans: প্রাচীনকালের আগ্নেয় ও রূপান্তরিত শিলার ওপর গভীর আবহবিকারের প্রভাবে শিলাস্তরের উপরিভাগ থেকে সিলিকা ও অন্যান্য দ্রবণীয় খনিজ অপসারিত হয় এবং পড়ে থাকে লোহা ও অ্যালুমিনিয়াম অক্সাইড ও হাইড্রক্সাইড । বাদামি বর্ণের কাকর জাতীয় পদার্থ দিয়ে তৈরি এই মৃত্তিকায় জৈব পদার্থ চুন , ম্যাগনেশিয়াম , নাইট্রোজেন প্রভৃতির পরিমাণ খুবই কম । এই মাটির জলধারণ ক্ষমতাও খুব কম । তাই এই মাটি কৃষির পক্ষে একেবারে অনুর্বর ।

  1. পার্বত্য মৃত্তিকার বৈশিষ্ট্য লেখো ।

Ans: পার্বত্য মৃত্তিকার বৈশিষ্ট্যগুলি হল— ( ১ ) পার্বত্য অঞ্চলের মৃত্তিকার রং কালো ও ধুসর বাদামি । ( ২ ) এই মাটিতে পটাশ ও ফসফরাস কম , কিন্তু জৈব পদার্থের পরিমাণ বেশি । ( ৩ ) প্রকৃতিগতভাবে এই মাটি অম্ল এবং অনুর্বর । ( ৪ ) ধাপ চাষের মাধ্যমে চা , ফল , বার্লি , আলু , ধান , গম ও জোয়ার চাষ করা যায় ।

  1. মরু ও শুদ্ধ মৃত্তিকার বৈশিষ্ট্য লেখো ।

Ans: মরু ও শুষ্ক মৃত্তিকার বৈশিষ্ট্যগুলি হল- ( ১ ) মাটির রং বাদামি হলুদ ও হালকা হলুদ , ( ২ ) মাটিতে লবণের ভাগ বেশি , ( ৩ ) মাটির জলধারণ ক্ষমতা কম এবং জৈব পদার্থের পরিমাণ কম থাকায় অনুর্বর প্রকৃতির , ( ৪ ) তবে ফসফেট ও নাইট্রেটের উপস্থিতির কারণে আর্দ্রতার প্রভাবে এই মাটি উর্বর হয়ে ওঠে ।

  1. মৃত্তিকায় লবণের ভাগ বেশি কেন ?

Ans: মরু অঞ্চলে গভীর বাষ্পীভবনের কারণে মৃত্তিকার অভ্যন্তরের লবণ কৌশিক প্রক্রিয়ায় ক্রমাগত হারে উপরে উঠে মৃত্তিকার উপরিস্তরে সঞ্চিত হচ্ছে । তাই এইসকল অঞ্চলে অর্থাৎ মরু অঞ্চলে মরু মৃত্তিকার লবণতা বাড়ছে যা কৃষিকাজের পক্ষে ক্ষতিকর ।

  1. প্রবহমান জলধারা কীভাবে মৃত্তিকাকে ক্ষয় করে ?

Ans: প্রবহমান জলধারার দ্বারা মৃত্তিকা ক্ষরের প্রক্রিয়াসমূহ— ( ক ) বৃষ্টির আঘাতে ক্ষয় : বৃষ্টির ফোঁটা সরাসরি মাটিকে আঘাত করলে মাটি আলগা হয় এবং জলের প্রবাহে তা সহজেই যায় । ( খ ) শিট বা চাদর ক্ষয় : ঢালু জমির ওপর  ি প্রবাহিত জলধারার মাধ্যমে মাটির উপরিস্তরের অপসারণ হল শিট ক্ষয় । ( গ ) জলনালিকা ক্ষয় : জলপ্রবাহে ছোট্ট ছোট্ট নালি তৈরির মাধ্যমে মাটির অপসারণ হল জলনালিকা ক্ষয় । ( ঘ ) খোয়াই ক্ষয় : ছোটো নালা বড়ো নালায় পরিণত হলে তা হল খোয়াই । এর মাধ্যমে মাটির ক্ষয় খুব বেশি ঘটে । বীরভূম , বাঁকুড়ার লালমাটি অঞ্চলে খোয়াই ক্ষয় খুব বেশি ঘটে । ( ঙ ) র‍্যাভাইন ক্ষয় : জলনালিকা ও খোয়াই আরও গভীর খাড়া পাড়যুক্ত গভীর খাত তৈরি করে এটি হল র‍্যাভাইন ক্ষয় । এ ছাড়া নদীর পাড় – ভাঙন , পার্বত্য অঞ্চলে ভূমিধসজনিত ক্ষয় জলপ্রবাহ ক্ষয়ের মধ্যে পড়ে ।

  1. মৃত্তিকা ক্ষয়ের ফলে বন্যার মাত্রা বাড়ে কারণ ব্যাখ্যা করো । 

Ans: মৃত্তিকা ক্ষয় পেলে সেই ক্ষয়জাত দ্রব্যগুলি নদীর খাতে জমলে খাতের উচ্চতা বাড়ে এবং জলবহনের ক্ষমতা কমে । বর্ষাকালে নদীর দুই তীর ছাপিয়ে বন্যা হয় ।

  1. ভারতের কোন কোন অঞ্চলে মৃত্তিকা ক্ষয়ের মাত্রা খুব বেশি ?

Ans: ভারতের অত্যধিক মৃত্তিকা ক্ষয়প্রবণ অঞ্চল ( Very heavy erosion ) হল মধ্য ভারত তথা মধ্যপ্রদেশের উত্তরাংশ , উত্তরপ্রদেশের দক্ষিণাংশ রাজস্থানের দক্ষিণ – পূর্বাংশ , গুজরাটের দক্ষিণ – পূর্বাংশ এবং পাঞ্জাব , হিমাচল প্রদেশ , উত্তরাখণ্ড ও হরিয়ানার বিস্তীর্ণ অংশ । ভারতের অধিক মৃত্তিকা ক্ষয়প্রবণ অঞ্চল হল ছোটোনাগপুর মালভূমি অংশ এবং পশ্চিমঘাট পর্বতমালার বিস্তীর্ণ অংশ এবং মধ্যম প্রকৃতির মৃত্তিকা ক্ষয় অঞ্চল হল উত্তরপ্রদেশের উত্তর পশ্চিমাংশ , সমগ্র মধ্যপ্রদেশ , মহারাষ্ট্রের সমগ্র মধ্য – পূর্বাংশ , অন্ধ্রপ্রদেশের সমগ্র । পশ্চিমাংশ , কর্ণাটকের পূর্বাংশ ও তামিলনাড়ুর উত্তরাংশ ।

রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর | ভারতের মৃত্তিকা (ভারত – পঞ্চম অধ্যায়) মাধ্যমিক ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর | Madhyamik Geography Bharater Mrittika Question and Answer : 

1. ভারতের মৃত্তিকার শ্রেণিবিভাগ করে প্রধান একপ্রকার মৃত্তিকার অবস্থান , বৈশিষ্ট্য ও গুরুত্ব লেখো ।

Ans: ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের মৃত্তিকার উৎপত্তি , বৈশিষ্ট্য , উদ্ভিদের বিস্তার , শিলাস্তরের গঠন ও জলবায়ুর তারতম্য অনুসারে মৃত্তিকাকে প্রধান ছ – টি ভাগে ভাগ করা যায় । মৃত্তিকার প্রধান ভাগগুলি হল- ( ১ ) পলি মৃত্তিকা , ( ২ ) কৃষ্ণ মৃত্তিকা , ( ৩ ) লোহিত মৃত্তিকা , ( ৪ ) ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা , ( ৫ ) পার্বত্য মৃত্তিকা এবং ( ৬ ) নরু ও শুষ্ক অঞ্চলের মৃত্তিকা । নিম্নে পলি মৃত্তিকার অবস্থান , বৈশিষ্ট্য ও গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা করা হল । 

পলি বা পাললিক মৃত্তিকা ( Alluvial Soil ) : অবস্থান : উত্তর ভারতে গঙ্গা , ব্রহ্মপুত্র ও সিন্ধু সমভূমি , দক্ষিণ ভারতের মহানদী , গোদাবরী , কৃষ্ণা ও কাবেরী অববাহিকার কয়েকটি অংশে এবং উপকূল বরাবর নদী দ্বারা বাহিত পলি সজ্জিত হয়ে এই মৃত্তিকা গঠিত হয়েছে । 

বৈশিষ্ট্য : ( ১ ) অবস্থানের তারতম্য অনুসারে এক – একটি অঞ্চলের পলিমাটির রং এক এক রকমের হয় । কোনো অঞ্চলের পলিমাটিতে বালির ভাগ বেশি , কোথাও আবার কাদার ভাগ বেশি । ( ২ ) পলিমাটিতে জৈব পদার্থ , ফসফরাস পটাশিয়ামের পরিমাণ বেশি , কিন্তু এই মাটিতে নাইট্রোজেনের পরিমাণ কম হলেও কৃষির পক্ষে অতি উর্বর । ( ৩ ) অঞ্চলবিশেষে পলিমাটির বিভিন্ন উপাদানের তারতম্যের ফলে এই মাটির উর্বরতারও তারতম্য হয় । ( ৪ ) মাটির জলধারণ ক্ষমতা বেশি বলে এটি উর্বর । 

গুরুত্ব : এই মাটি কৃষিকার্যের পক্ষে অত্যন্ত উর্বর বলে প্রায় সব ধরনের ফসলের চাষ এই মাটিতে করা হয় । যেমন- ধান , গম , ইক্ষু , তৈলবীজ , পাট আলু প্রভৃতি । ভারতের অধিকাংশ কৃষিজ ফসল এই মাটিতেই উৎপন্ন হয়ে থাকে । 

2. ভারতের রেগুর মৃত্তিকা ও পলি মৃত্তিকার অবস্থান , বৈশিষ্ট্য ও গুরুত্ব লেখো ।

Ans: রেগুর মৃত্তিকা বা কৃষ্ণ মৃত্তিকা ( Black Soil ) : 

অবস্থান : মহারাষ্ট্র , মধ্যপ্রদেশের পশ্চিম অংশ , গুজরাটের দক্ষিণ , অন্ধ্রপ্রদেশের উত্তর – পশ্চিম , কর্ণাটকের উত্তর এবং তামিলনাড়ুর উত্তর অংশের প্রায় ৫.৫০ লক্ষ বর্গকিমি ( ১৭ % ) স্থানজুড়ে আছে কৃষ্ণ মৃত্তিকা বা রেগুর । 

বৈশিষ্ট্য : ( ১ ) ব্যাসল্ট শিলা থেকে সৃষ্ট এই মৃত্তিকায় টাইটানিয়াম অক্সাইড ও জৈব যৌগের পরিমাণ বেশি থাকায় রং কালো । ( ২ ) বর্ষাকালে এই মাটি চটচটে কিন্তু শুষ্ক ঋতুতে বেশ শক্ত এবং ফাটলের সৃষ্টি হয় । ( ৩ ) পলি ও কাদার ভাগ ( ৫০ % -৮০ % ) বেশি থাকায় এখন মাঝারি বলে জলধারণ ক্ষমতা খুব বেশি । ( ৪ ) বিভিন্ন খনিজে সমৃদ্ধ হওয়ায় ( অ্যালুমিনা , চুন , ম্যাগনেশিয়াম , আয়রন । অক্সাইড ) মাটি খুব উর্বর । 

গুরুত্ব : এই মাটিতে কার্পাস , মিলেট , তৈলবীজ , তামাক ও পিঁয়াজের প্রচুর পরিমাণ চাষ হয় । এই মৃত্তিকা তুলো চাষের জন্য বিশেষ উপযোগী বলে একে ‘ Black Cotton Soil বলে ।

3. ভারতের লোহিত মৃত্তিকা ও ল্যাটেরাইট মৃত্তিকার অবস্থান , বৈশিষ্ট্য ও গুরুত্ব লেখো ।

Ans: লোহিত মৃত্তিকা ( Red Soil ) : • অবস্থান : ভারতের প্রায় ১১ % এলাকা জুড়ে বিস্তৃত এই ধরনের মৃত্তিকা দাক্ষিণাত্য মালভূমির অন্তর্গত কর্ণাটক , তামিলনাড়ু , তেলেঙ্গানা , ওড়িশা প্রভৃতি রাজ্যের মালভূমি অঞ্চল , ঝাড়খণ্ডের ছোটোনাগপুর মালভূমিতে এবং উত্তর – পূর্ব ভারতের পার্বত্য অঞ্চল ও মেঘালয় মালভূমিতে এই মাটি দেখা যায় । 

বৈশিষ্ট্য : ( ১ ) লোহার পরিমাণ বেশি থাকায় সাধারণত এই মাটির রং লাল , তবে কোথাও কোথাও হলুদ রং – এর লোহিত মাটিও দেখা যায় । ( ২ ) বালি ও কাঁকরপূর্ণ হওয়ায় লোহিত মাটির জলধারণ ক্ষমতা খুব কম । ( ৩ ) এই মাটিতে লোহা ও অ্যালুমিনিয়ামের ভাগ বেশি , নাইট্রোজেন , চুন ও ফসফরাসের ভাগ কম এবং জৈব পদার্থ খুব কম থাকায় সাধারণভাবে এটি অনুর্বর । ( ৪ ) এই মৃত্তিকায় বালির ভাগ বেশি ও কাদার ভাগ কম বলে এথন সূক্ষ্ম প্রকৃতির । ( ৫ ) আৰ্দ্ৰ ঋতুতে এই মৃত্তিকা অত্যন্ত শক্ত । ( ৬ ) প্রধানত জলসেচের সাহায্যে লোহিত মৃত্তিকাযুক্ত অঞ্চলে রাগি , তৈলবীজ , জোয়ার ও সামান্য ধান উৎপন্ন হয় । সহায়িকা ,

 গুরুত্ব : লোহিত মৃত্তিকা অনুর্বর হলেও মিলেট , বাদাম , ভুট্টা , সয়াবিন , আঙুর ও কফি উৎপাদনের পক্ষে বিশেষ উপযোগী । জলসেচ ও সার প্রয়োগের মাধ্যমে এই মাটিতে ধান , তৈলবীজ , ডাল প্রভৃতির চাষ করা হয় । ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা ( Laterite Soil ) অবস্থান : কর্ণাটক , তামিলনাড়ু , অন্ধ্রপ্রদেশ , ঝাড়খণ্ড , আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ , পশ্চিমবঙ্গ ও মেঘালয়ের কয়েকটি অঞ্চলের প্রায় ২.৫ লক্ষ বর্গকিমি ( প্রায় ৮ % ) স্থানজুড়ে এই মৃত্তিকা দেখা যায় । 

বৈশিষ্ট্য : ( ১ ) সাধারণত এই মাটি ইটের মতো লাল রং – এর । তবে বাদামি ও হলুদ – বাদামি রং – এর ল্যাটেরাইট মাটিও দেখা যায় । ( ২ ) ল্যাটেরাইট মাটি শুকনো অবস্থায় ইটের মতো শক্ত হয় , তবে ভিজে অবস্থায় থকথকে হয়ে যায় । ( ৩ ) লোহা , ম্যাঙ্গানিজ অক্সাইড ও অ্যালুমিনিয়াম অক্সাইড এই মৃত্তিকার প্রধান উপাদান । ( ৪ ) বড়ো শক্ত দলার মতো পদার্থে কিংবা বিভিন্ন কাঁকরজাতীয় পদার্থে এই মৃত্তিকা গঠিত । কাঁকরপূর্ণ বলে এই মাটির জলধারণ ক্ষমতা বিশেষ । ( ৫ ) কাঁকর ও বালিপূর্ণ হওয়ায় এই মৃত্তিকার প্রথন স্থূল প্রকৃতির । ( ৬ ) ল্যাটেরাইট মাটিতে নাইট্রোজেন ও জৈব পদার্থ বিশেষ থাকে না বলে এবং মাটির জলধারণ ক্ষমতা না থাকায় সাধারণভাবে এই মাটি অনুর্বর । ( ৭ ) তবে জলসেচ ও সার প্রয়োগ করে কিছু কিছু অঞ্চলে ধান , চা , কফি ও রবার চাষ করা হয় । 

গুরুত্ব : এই মৃত্তিকা অনুবর বলে কৃষিকাজের সহায়ক নয় । তবে জলসেচ ও সার প্রয়োগের মাধ্যমে এই মাটিতে চা , কফি , রবার ও বাদামের চাষ হয় । গ্রামাঞ্চলে রাস্তাঘাট নির্মাণ এই মাটি ব্যবহৃত হয় ।

3. মৃত্তিকা সংরক্ষণ কোন্ কোন্ পদ্ধতিতে করা হয় ? 

Ans: মৃত্তিকা ক্ষয় প্রতিরোধ ও সংরক্ষণ ( Prevention of Soil Erosion & Conservation ) : যে বিজ্ঞানসম্মত পদ্ধতির মাধ্যমে মৃত্তিকাকে ক্ষয় ও অবনমনের হাত থেকে সম্পূর্ণ বা আংশিকভাবে রক্ষা করা যায় , তাকেই বলে মৃত্তিকা সংরক্ষণ । 

মৃত্তিকা সংরক্ষণের পদ্ধতিসমূহ ( Methods of Soil Conservation ) : 

( ১ ) বৃক্ষরোপণ ( Tree Planting ) : মৃত্তিকা সংরক্ষণের একটি গুরুত্বপূর্ণ পদ্ধতি হল বৃক্ষরোপণ । যেহেতু উদ্ভিদ তার শিকড়ের দ্বারা মৃত্তিকা কণাগুলিকে দৃঢ়ভাবে আটকে রাখে , সেই কারণে যদি নতুন বৃক্ষরোপণ করা যায় তাহলে মৃত্তিকা ক্ষয়ের পরিমাণ কমবে । 

( ২ ) ধাপ চাষ ( Terrace farming ) : ভারতে পাহাড়ি অঞ্চলে বিভিন্ন উচ্চতায় সিঁড়ির মতো ধাপ কেটে অর্ধচন্দ্রাকার সমতল জমি তৈরি করে সেখানে চাষ করা হয় । এই পদ্ধতিকে ধাপ চাষ বলা হয় । এর ফলে মৃত্তিকা ক্ষয় রোধ পায় । 

( ৩ ) সমোন্নতি রেখা চাষ ( Contour Ploughing ) : পার্বত্য উপত্যকার ঢালু জমিতে সমান উচ্চতা বরাবর ঢালের আড়াআড়িভাবে জমি কর্ষণ , বপন ও রোপণ করা হয় । এখানে আবার সমোন্নতি রেখা বরাবর দীর্ঘাকার উঁচু বাঁধ তৈরি করে ঢালের দিকে ভূপৃষ্ঠীয় প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করা হয় । এতে মৃত্তিকা ক্ষয় রোধ পায় । 

( 8 ) ফালি চাষ ( Strip Cropping ) : এই পদ্ধতিতে উদ্ভিদহীন ঢালু জমিতে বৃষ্টির গতি ও মাটি ক্ষয় বেশি হওয়ায় ঢালের আড়াআড়ি দিকে চওড়া ফিতের মতো জমি তৈরি করে ক্ষয়রোধী শস্য চাষ করে মৃত্তিকা ক্ষয় রোধ করা হয় । 

( ৫ ) গালি চাষ ( Gully ploughing ) গালি অঞ্চলে যেখানে জল প্রবাহিত হয় সেই প্রবাহপথে আড়াআড়িভাবে পাথর দিয়ে কৃত্রিমভাবে জল ধরে রেখে সেই জল দিয়ে চাষাবাদ করার ব্যবস্থা করা হয় । একে গালি চাষ বলে ।  

( ৬ ) ঝুম চায় রোধ : ঝুম চাষের ফলে প্রধানত মৃত্তিকা ক্ষয় হয় । যদি অবৈজ্ঞানিক প্রথায় এই ঝুম চাষ বন্ধ করা হয় , তাহলে মৃত্তিকার ক্ষয় রোধ পাবে । 

( ৭ ) মালচিং ( Mulching ) : জমি থেকে ফসল কেটে নেওয়ার পর মু গাছে যে অংশ মাটিতে পড়ে থাকে , তাকে মাটির আবরণ হিসেবে ব্যবহার করে পরবর্তী চাষ করা হয় । এই আবরণ একদিকে যেমন মৃত্তিকা ক্ষয় রোধ করে তেমনি মৃত্তিকায় জৈব পদার্থ সৃষ্টিতেও সাহায্য করে । 

( ৮ ) শেল্টার বেল্ট ( Shelter Belt ) কোনো স্থানে আবহাওয়া গত ক্ষয়ের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য যখন জমির চারপাশে বড়ো বড়ো গাছ সারিবদ্ধভাবে লাগানো হয় , তখন তাকে শেল্টার বেল্ট বলে । 

( ৯ ) শস্যাবর্তন ( Crop Rotation ) : একই জমিতে সারা বছর ধরে বিভিন্ন ফসল শস্যাবর্তন প্রক্রিয়ায় চাষ করলে সহায়িকা , মৃত্তিকার উর্বরতা বজায় থাকে ও মাটি ক্ষয়ের হাত থেকেও রক্ষা পায় । 

( ১০ ) নদীপাড়ে বাঁধ নির্মাণ ( Dam Construction ) : নদীর পাড়ে বা সমুদ্র উপকূলে বাঁধ নির্মাণ করলে বা কংক্রিট দিয়ে নদীর পাড় বাঁধলে মৃত্তিকা ক্ষয় কম হয় । 

( ১১ ) নিয়ন্ত্রিত পশুচারণ ( Control Overgrazing ) : ভূমির ওপর তৃণের আচ্ছাদন থাকলে মৃত্তিকাক্ষয় কম হয় । তাই নিয়ন্ত্রিত মাত্রায় পশুচারণ করলে মৃত্তিকাক্ষয় রোধ করা যায় । এ ছাড়াও মালচিং প্রক্রিয়ার চাষাবাদ করা , সঠিক শস্য } নির্ধারণ করা এবং বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে চাষ করা ইত্যাদির মাধ্যমেও মৃত্তিকার ক্ষয়রোধ করা হয় ।

==================================================

ভারতের মৃত্তিকা (ভারত – পঞ্চম অধ্যায়)

অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর | ভারতের মৃত্তিকা (ভারত – পঞ্চম অধ্যায়) – মাধ্যমিক ভূগোল সাজেশন | Madhyamik Geography Suggestion : 

  1. কৃষ্ণ মৃত্তিকায় কীসের পরিমাণ বেশি থাকে । 

Answer : চুন ও কাদা ।

  1. পার্বত্য অঞ্চলের মৃত্তিকার রং কী ?

Answer : কালো / ধূসর বাদামি ।

  1. ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা প্রকৃতপক্ষে কোন শ্রেণির মৃত্তিকা ?

Answer : লোহিত মৃত্তিকা ।

  1. কোন্ মৃত্তিকার জলধারণ ক্ষমতা সর্বাধিক ।

Answer : কৃষ্ণ মৃত্তিকা ।

  1. নদীর মোহানা অঞ্চলের মৃত্তিকা কী প্রকৃতির হয় ?

Answer : লবণাক্ত ।

  1. মৃত্তিকা ক্ষয়ের সর্বপ্রধান কারণ কী ?

Answer : বৃক্ষচ্ছেদন ।

  1. আর্দ্র অঞ্চলে কীসের দ্বারা মৃত্তিকা ক্ষয় বেশি হয় ?

Answer : জলের দ্বারা ।

  1. ভারতের প্রায় কত জমি প্রতি বছর জলের দ্বারা ক্ষয়প্রাপ্ত হয় ?

Answer : প্রায় ৫৩.৩৪ মিলিয়ন হেক্টর জমি ।

  1. পাহাড়ি অঞ্চলে বিভিন্ন উচ্চতায় ধাপ কেটে যে চাষ করা হয় , তাকে কী বলে ?

Answer : ধাপ চাষ ।

  1. পাহাড়ে জঙ্গল পুড়িয়ে যে চাষ হয় , তাকে কী বলে ? 

Answer : ঝুম চাষ ।

  1. রেগুর শব্দের উৎপত্তি হয় কোন শব্দ থেকে ?

Answer : তেলুগু শব্দ রেগাডা থেকে ( Regada ) .

  1. মরু অঞ্চলের মৃত্তিকার রং কী ?

Answer : বাদামি হলুদ ও হালকা হলুদ আকারে ।

  1. যে মৃত্তিকায় লোহা ও অ্যালুমিনিয়ামের পরিমাণ বেশি থাকে এবং যার রং বাদামি , লাল বা হলুদ হয় , তাকে কী বলে ?

Answer : পেডালফার মৃত্তিকা ।

  1. যে মৃত্তিকায় চুনের ভাগ বেশি ও রং কালো তাকে কী বলা হয় ?

Answer : পেডোক্যাল মৃত্তিকা ।

  1. গঠন হিসেবে খাদার বা নবীন পলিমাটিকে কী কী ভাগে ভাগ করা যায় ?

Answer : দোআঁশ মাটি , এঁটেল মাটি ও বেলে মাটি ।

  1. যে মাটিতে বালি ও কাদার ভাগ প্রায় সমান হয় তাকে । বলে ?

Answer : দোঁয়াশ মাটি । 

  1. বেলেমাটিতে কোন্ কোন্ ফসলের চাষ হয় ?

Answer : তরমুজ , শশা , আলু ইত্যাদি ।

  1. কৃষ্ণ মৃত্তিকার অপর নাম কী ?

Answer : রেগুর মৃত্তিকা বা কৃষ্ণ কার্পাস মৃত্তিকা ।

  1. কোন্ মৃত্তিকা ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে খোয়াই ভূমিরূপের সৃষ্টি করে ?

Answer : ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা ।

  1. পশ্চিমবঙ্গ ও উত্তরপ্রদেশের তরাই অঞ্চলে কী মৃত্তিকা দেখা যায় ?

Answer : ভাবর । 

  1. উচ্চ গাঙ্গেয় সমভূমির জলাভূমির মৃত্তিকাকে কী বলে ? 

Answer : ধাঙ্কার ।

MCQ | ভারতের মৃত্তিকা (ভারত – পঞ্চম অধ্যায়) – মাধ্যমিক ভূগোল সাজেশন | Madhyamik Geography Suggestion :

  1. মৃত্তিকায় অবস্থিত , পরিপূর্ণভাবে বিশ্লিষ্ট জীবদেহবিশেষ কী নামে পরিচিত ?(A) হিউমাস(B) কালার(C) ঊষর (D) পিট

Answer : (A) হিউমাস

  1. মরু মৃত্তিকা কী প্রকৃতির হয় ? (A) অম্লধর্মী(B) ক্ষারধর্মী(C) লবণাক্ত(D) কোনোটাই নয়

Answer : (B) ক্ষারধর্মী

  1. লাল মাটিতে কীসের পরিমাণ বেশি থাকে ? (A) পটাশিয়াম(B) হিউমাস (C) অ্যালুমিনিয়াম(D) লোহা 

Answer : (D) লোহা

  1. কোন মাটির স্থানীয় নাম ‘ সারাম ’ ?(A) ল্যাটেরাইট(B) লোহিত(C) বেলেমাটি(D) ভুর

Answer : (A) ল্যাটেরাইট

  1. পডসল মৃত্তিকা দেখতে পাওয়া যায় -(A) আরাবল্লি পর্বতে(B) সাতপুরা পর্বতে(C) বিন্ধ্য পর্বতে(D) হিমালয় পর্বতে

Answer : (D) হিমালয় পর্বতে

  1. কোন্ মৃত্তিকায় হিউমাসের পরিমাণ বেশি ?(A) পাললিক (B) পডসল(C) লোহিত মৃত্তিকা (D) পাললিক মৃত্তিকা 

Answer : (C) লোহিত মৃত্তিকা

  1. আন্দামান – নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে কোন্ ধরনের মৃত্তিকা দেখা যায় ?(A) লোহিত মৃত্তিকা (B) পিট মৃত্তিকা (C) রেগুর মৃত্তিকা (D) ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা 

Answer : (D) ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা

  1. উত্তর ভারতের সমভূমি অঞ্চলে নদী উপত্যকার পুরোনো পলিমাটিকে কী বলে ?(A) ভাঙ্গার(B) খাদার (C) ভুর(D) বেট

Answer : (A) ভাঙ্গার

  1. তরাই অঞ্চলের মৃত্তিকার অপর নাম হল -(A) ভাঙ্গার (B) খাদার(C) ঊষর (D) ভাবর

Answer : (D) ভাবর

  1. কোন্ মৃত্তিকায় তুলো চাষ ভালো হয় ? (A) রেগুর (B) পলি(C) লোহিত মৃত্তিকা(D) ল্যাটেরাইট 

Answer : (A) রেগুর

  1. ভারতের সমভূমি অঞ্চলে প্রধানত কোন ধরনের মৃত্তিকা দেখা যায় ? (A) কৃষ্ণ মৃত্তিকা(B) মরু মৃত্তিকা(C) লোহিত মৃত্তিকা(D) পলি মৃত্তিকা

Answer : (D) পলি মৃত্তিকা

  1. নদীর প্লাবনভূমিতে নবীন পলি দিয়ে গঠিত হয় কোন্ মৃত্তিকা ?(A) ভাঙ্গার (B) খাদার (C) ভুর (D) উষর

Answer : (B) খাদার 

  1. উচ্চ গাঙ্গেয় সমভূমির নিম্ন অঞ্চলে বালিমিশ্রিত কোন্ মৃত্তিকা দেখা যায় ?(A) এটেল(B) ভাঙ্গার(C) ভুর (D) কালার

Answer : (C) ভুর

  1. দাক্ষিণাত্যের লাভাগঠিত মালভূমি অঞ্চলে যে মৃত্তিকা দেখা যায় তা হল – (A) লোহিত মৃত্তিকা (B) ঊষর মৃত্তিকা(C) রেগুর মৃত্তিকা(D) ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা 

Answer : (C) রেগুর মৃত্তিকা

  1. ভারতের কোথায় মরুভূমি গবেষণা কেন্দ্র রয়েছে ?(A) দিল্লিতে(B) জয়পুরে(C) যোধপুরে(D) আমেদাবাদে

Answer : (C) যোধপুরে

  1. গ্রানাইট ও নিস্ শিলা ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে সৃষ্টি হয় -(A) ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা(B) কৃষ্ণ মৃত্তিকা(C) লোহিত মৃত্তিকা(D) রেগুর মৃত্তিকা

Answer : C) লোহিত মৃত্তিকা

  1. বালির ভাগ বেশি থাকার জন্য কোন্ মৃত্তিকায় জলধারণ ক্ষমতা কম ? (A) কৃষ্ণ(B) লোহিত(C) এটেল (D) পাললিক

Answer : (B) লোহিত

সংক্ষিপ্ত উত্তরভিত্তিক প্রশ্নোত্তর | ভারতের মৃত্তিকা (ভারত – পঞ্চম অধ্যায়) – মাধ্যমিক ভূগোল সাজেশন | Madhyamik Geography Suggestion : 

  1. কৃষ্ণ মৃত্তিকায় কোন্ কোন্ ফসল ভালো জন্মায় ?

Answer : কৃষ্ণ মৃত্তিকা কার্পাস চাষের জন্য অত্যন্ত বিখ্যাত । তাই মাটি ‘ Black cotton Soil ‘ নামে পরিচিত । কার্পাস ছাড়াও এই মাটিতে মিলেট , তৈলবীজ , তামাক , পিঁয়াজ প্রভৃতির চাষ হয় ।

  1. কৃষ্ণ মৃত্তিকাকে ‘ কৃষ্ণকার্পাস মৃত্তিকা ‘ বা ‘ Black Cotton Soil ‘ বলে কেন ?

Answer : কৃষ্ণ মৃত্তিকা বা রেগুর কার্পাস বা তুলা চাষের জন্য উপযোগী বলে , কৃষ্ণ মৃত্তিকাকে ‘ কৃষ্ণ কার্পাস মৃত্তিকা ‘ বা ‘ Black Cotton Soil বলে ।

  1. লোহিত মৃত্তিকা কোথায় কোথায় দেখা যায় ?

Answer : কর্ণাটক , মহারাষ্ট্রের দক্ষিণ – পূর্বাংশ , অন্ধ্রপ্রদেশের পূর্বভাগ , মধ্যপ্রদেশ , ওড়িশা , ঝাড়খণ্ড ও উত্তরপ্রদেশের দক্ষিণ অংশ , পশ্চিমবঙ্গের বীরভূম , বাঁকুড়া জেলায় এবং উত্তর – পূর্বের নাগাল্যান্ড , মণিপুর , মিজোরাম , ত্রিপুরা ও মেঘালয় রাজ্যে লোহিত মৃত্তিকা দেখা যায় ।

  1. লোহিত মৃত্তিকায় কোন্ কোন্ ফসল ভালো জন্মায় ? 

Answer : লোহিত মৃত্তিকা অনুর্বর হলেও মিলেট , বাদাম , ভুট্টা , সোয়াবিন , আঙুর ও কফি উৎপাদনের পক্ষে বিশেষ উপযোগী । জলসেচ ও সার প্রয়োগের মাধ্যমে এই মাটিতে ধান , তৈলবীজ , ডাল প্রভৃতির চাষ করা হয় । HTTO DRA 

  1. ল্যাটেরাইট মৃত্তিকার এইরূপ নামকরণের কারণ কী ? 

Answer : লাতিন ভাষায় ‘ ল্যাটার ‘ ( Later ) শব্দের অর্থ হল ইট । ইটের মতো শক্ত ও লাল রঙের হয় বলে , এই মৃত্তিকার নাম ল্যাটেরাইট ।

  1. ল্যাটেরাইট মৃত্তিকার খনিজ উপাদান কী কী ?

Answer : ল্যাটেরাইট মৃত্তিকার খনিজ উপাদানগুলি হল লোহা , অ্যালুমিনিয়াম , ম্যাঙ্গানিজ অক্সাইড প্রভৃতি ।

  1. পার্বত্য মৃত্তিকা কোথায় কোথায় দেখা যায় ?

Answer : উত্তরে হিমালয় এবং দক্ষিণে নীলগিরি ও পশ্চিমঘাট পর্বতের বনভূমি অঞ্চলে পার্বত্য মৃত্তিকা দেখা যায় । হিমালয়ের উপত্যকা ও অবনমিত অঞ্চলেই এই মৃত্তিকা সবচেয়ে বেশি দেখা যায় ।

  1. পার্বত্য ও অরণ্য মৃত্তিকায় কোন্ কোন্ ফসল ভালো জন্মায় ?

Answer : পার্বত্য মৃত্তিকা অনুর্বর হলেও , চা , কফি , বিভিন্ন মশলা , ফল প্রভৃতি বাগিচা ফসল ভালো জন্মায় ।

  1. মরু ও শুষ্ক মৃত্তিকা ভারতের কোথায় কোথায় দেখা যায় ?

Answer : রাজস্থানের মরুভূমি ও তৎসংলগ্ন পাঞ্জাব , হরিয়ানা | ও গুজরাটের প্রায় ১.৫০ লক্ষ বর্গকিমি অঞ্চলজুড়ে রয়েছে মরু ও শুষ্ক মৃত্তিকা ।

  1. শিট ক্ষয় ও খোয়াই ক্ষয় কাকে বলে ?

Answer : ঢালু জমির ওপর দিয়ে প্রবাহিত জলধারার মাধ্যমে মাটির উপরিস্তরের অপসারণ হল শিট ক্ষয় । ছোটো নালা বড়ো নালায় পরিণত হলে তা হল খোয়াই ক্ষয় । প্রশ্ন ২৯ র‍্যাভাইন ক্ষয় কী ? উত্তর : জলনালিকা ও খোয়াই আরও গভীর খাড়া পাড়যুক্ত গভীর খাত তৈরি করে । একেই বলে র‍্যাভাইন ক্ষয় ।

  1. অপভূমি বা Badland কাকে বলে ?

Answer : খোয়াই ও র‍্যাভাইন ক্ষয়ের মাধ্যমে বিশাল অঞ্চল এবড়োখেবড়ো ও শুষ্ক অনুর্বর ভূমিতে পরিণত হলে তা হল অপভূমি বা ব্যাডল্যান্ড । যেমন— গড়বেতায় অবস্থিত গণগনির ব্যাডল্যান্ড ।

  1. ধাঙ্কার কাকে বলে ?

Answer : উচ্চ গাঙ্গেয় সমভূমিতে জলাভূমির মৃত্তিকাকে ধাক্কার ( Dhankar ) মৃত্তিকা বলে । 

  1. ভাবর মৃত্তিকা কাকে বলে ? 

Answer : পর্বতের পাদদেশে নুড়ি , পলি ও বালি দ্বারা গঠিত মৃত্তিকাকে ভাবর মৃত্তিকা বলে ।

  1. ভাবর মৃত্তিকা অনুর্বর কেন ? 

Answer : ভাবর মৃত্তিকা নুড়ি , কাকর ও বালি দ্বারা গঠিত হওয়ায় এই মৃত্তিকার জলধারণ ক্ষমতা খুবই কম । তাই এই মৃত্তিকা অত্যন্ত অনুর্বর ।

  1. পলি মৃত্তিকায় কোন কোন ফসল উৎপন্ন হয় ?

Answer : ভারতের পলিমাটিতে প্রায় সব ধরনের কৃষিজ ফসল উৎপাদিত হয় । প্রধান উৎপাদিত ফসল হল ধান , গম , আখ , তৈলবীজ , ডাল , পাট , আলু , শাকসবজি প্রভৃতি ।

  1. পলি মৃত্তিকা অত্যন্ত উর্বর কেন ?

Answer : এই পলি মৃত্তিকায় ফসফরাস ও পটাশিয়ামের পরিমাণ বেশি । অধিকাংশ স্থানে মাটির মধ্যে পলি , কাদা ও বালির ভাগ সমান সমান থাকায় মাটি দোআঁশ জাতীয় বলে জলধারণ ক্ষমতাও বেশ বেশি । তাই ইহা উর্বর । জেনে রাখো 

হিউমাস : মৃত্তিকায় অবস্থিত , পরিপূর্ণভাবে বিশ্লিষ্ট জীবদেহ বিশেষ Humus নামে পরিচিত । এটি মৃত্তিকার গঠন , সচ্ছিদ্রতা , উন্নতা প্রভৃতিকে নিয়ন্ত্রণ করে ।

  1. কৃষ্ণ মৃত্তিকা ভারতের কোথায় কোথায় দেখা যায় ? 

Answer : মহারাষ্ট্র , মধ্যপ্রদেশের পশ্চিম অংশ , গুজরাটের দক্ষিণ , অন্ধ্রপ্রদেশের উত্তর – পশ্চিম , কর্ণাটকের উত্তর ও তামিলনাড়ুর উত্তর অংশের প্রায় ৫.৫০ লক্ষ বর্গকিমি ( ১৭ % ) স্থানজুড়ে কৃষ্ণ মৃত্তিকা বা রেগুর মৃত্তিকা দেখা যায় ।

  1. রেগুর মৃত্তিকা কাকে বলে ?

Answer : দাক্ষিণাত্যের উত্তর – পশ্চিম অংশে লাভা গঠিত ব্যাসল্ট শিলা থেকে উৎপন্ন যে অতি উর্বর কৃষ্ণ মৃত্তিকা দেখা যায় , স্থানীয়ভাবে তাকে ‘ রেগুর ‘ বলে ।

  1. রেগুর মৃত্তিকার রং কালো হয় কেন ?

Answer : ব্যাসল্ট শিলায় আবহবিকারের ফলে সৃষ্ট রেগুর মৃত্তিকায় টাইটানিয়াম অক্সাইডের পরিমাণ খুব বেশি থাকে । এই কারণে রেগুর মৃত্তিকার রং হয় কালো ।

  1. ভুর কাকে বলে ?

Answer : উচ্চ গাঙ্গেয় সমভূমির নিম্ন অঞ্চলে ( বিশেষত উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের পশ্চিমাংশের দোয়ার অঞ্চলে ) বালি মিশ্রিত অতি সূক্ষ্ম মৃত্তিকা গঠিত তরঙ্গায়িত উচ্চভূমি দেখা যায় , যা ‘ ভুর ‘ নামে পরিচিত ।

ব্যাখ্যামূলক উত্তরধর্মী প্রশ্নোত্তর | ভারতের মৃত্তিকা (ভারত – পঞ্চম অধ্যায়) – মাধ্যমিক ভূগোল সাজেশন | Madhyamik Geography Suggestion : 

  1. মরু ও শুদ্ধ মৃত্তিকার বৈশিষ্ট্য লেখো ।

Answer : মরু ও শুষ্ক মৃত্তিকার বৈশিষ্ট্যগুলি হল- ( ১ ) মাটির রং বাদামি হলুদ ও হালকা হলুদ , ( ২ ) মাটিতে লবণের ভাগ বেশি , ( ৩ ) মাটির জলধারণ ক্ষমতা কম এবং জৈব পদার্থের পরিমাণ কম থাকায় অনুর্বর প্রকৃতির , ( ৪ ) তবে ফসফেট ও নাইট্রেটের উপস্থিতির কারণে আর্দ্রতার প্রভাবে এই মাটি উর্বর হয়ে ওঠে ।

  1. মৃত্তিকায় লবণের ভাগ বেশি কেন ?

Answer : মরু অঞ্চলে গভীর বাষ্পীভবনের কারণে মৃত্তিকার অভ্যন্তরের লবণ কৌশিক প্রক্রিয়ায় ক্রমাগত হারে উপরে উঠে মৃত্তিকার উপরিস্তরে সঞ্চিত হচ্ছে । তাই এইসকল অঞ্চলে অর্থাৎ মরু অঞ্চলে মরু মৃত্তিকার লবণতা বাড়ছে যা কৃষিকাজের পক্ষে ক্ষতিকর ।

  1. প্রবহমান জলধারা কীভাবে মৃত্তিকাকে ক্ষয় করে ?

Answer : প্রবহমান জলধারার দ্বারা মৃত্তিকা ক্ষরের প্রক্রিয়াসমূহ— ( ক ) বৃষ্টির আঘাতে ক্ষয় : বৃষ্টির ফোঁটা সরাসরি মাটিকে আঘাত করলে মাটি আলগা হয় এবং জলের প্রবাহে তা সহজেই যায় । ( খ ) শিট বা চাদর ক্ষয় : ঢালু জমির ওপর  ি প্রবাহিত জলধারার মাধ্যমে মাটির উপরিস্তরের অপসারণ হল শিট ক্ষয় । ( গ ) জলনালিকা ক্ষয় : জলপ্রবাহে ছোট্ট ছোট্ট নালি তৈরির মাধ্যমে মাটির অপসারণ হল জলনালিকা ক্ষয় । ( ঘ ) খোয়াই ক্ষয় : ছোটো নালা বড়ো নালায় পরিণত হলে তা হল খোয়াই । এর মাধ্যমে মাটির ক্ষয় খুব বেশি ঘটে । বীরভূম , বাঁকুড়ার লালমাটি অঞ্চলে খোয়াই ক্ষয় খুব বেশি ঘটে । ( ঙ ) র‍্যাভাইন ক্ষয় : জলনালিকা ও খোয়াই আরও গভীর খাড়া পাড়যুক্ত গভীর খাত তৈরি করে এটি হল র‍্যাভাইন ক্ষয় । এ ছাড়া নদীর পাড় – ভাঙন , পার্বত্য অঞ্চলে ভূমিধসজনিত ক্ষয় জলপ্রবাহ ক্ষয়ের মধ্যে পড়ে ।

  1. মৃত্তিকা ক্ষয়ের ফলে বন্যার মাত্রা বাড়ে কারণ ব্যাখ্যা করো । 

Answer : মৃত্তিকা ক্ষয় পেলে সেই ক্ষয়জাত দ্রব্যগুলি নদীর খাতে জমলে খাতের উচ্চতা বাড়ে এবং জলবহনের ক্ষমতা কমে । বর্ষাকালে নদীর দুই তীর ছাপিয়ে বন্যা হয় ।

  1. ভারতের কোন কোন অঞ্চলে মৃত্তিকা ক্ষয়ের মাত্রা খুব বেশি ?

Answer : ভারতের অত্যধিক মৃত্তিকা ক্ষয়প্রবণ অঞ্চল ( Very heavy erosion ) হল মধ্য ভারত তথা মধ্যপ্রদেশের উত্তরাংশ , উত্তরপ্রদেশের দক্ষিণাংশ রাজস্থানের দক্ষিণ – পূর্বাংশ , গুজরাটের দক্ষিণ – পূর্বাংশ এবং পাঞ্জাব , হিমাচল প্রদেশ , উত্তরাখণ্ড ও হরিয়ানার বিস্তীর্ণ অংশ । ভারতের অধিক মৃত্তিকা ক্ষয়প্রবণ অঞ্চল হল ছোটোনাগপুর মালভূমি অংশ এবং পশ্চিমঘাট পর্বতমালার বিস্তীর্ণ অংশ এবং মধ্যম প্রকৃতির মৃত্তিকা ক্ষয় অঞ্চল হল উত্তরপ্রদেশের উত্তর পশ্চিমাংশ , সমগ্র মধ্যপ্রদেশ , মহারাষ্ট্রের সমগ্র মধ্য – পূর্বাংশ , অন্ধ্রপ্রদেশের সমগ্র । পশ্চিমাংশ , কর্ণাটকের পূর্বাংশ ও তামিলনাড়ুর উত্তরাংশ ।

  1. ল্যাটেরাইট মাটি ভারতের কোথায় কোথায় দেখা যায় ? 

Answer : ভারতের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা । এই মৃত্তিকা দেখা যায় পশ্চিমঘাট , পূর্বঘাট , বিন্ধ্য সাতপুরা , রাজমহল প্রভৃতি পাহাড়ি অঞ্চলে এবং কর্ণাটক , অন্ধ্রপ্রদেশ , ওড়িশা , তামিলনাড়ু , ঝাড়খণ্ড , মেঘালয় , পশ্চিমবঙ্গ প্রভৃতি রাজ্যের মালভূমি অঞ্চলে । 

  1. ল্যাটেরাইট মৃত্তিকার উৎপত্তি কীভাবে ঘটেছে ?

Answer : ভারতে প্রাচীন শিলায় ( গ্রানাইট ও নিস ) গঠিত মালভূমি ও প্রাচীন পার্বত্য অঞ্চলে যেখানে উষ্ণতা ও বৃষ্টিপাত উভয়ই বেশি এবং পর্যায়ক্রমে আর্দ্র ও শুষ্ক ঋতু বিরাজ করে সেখানেই । এই মৃত্তিকার সৃষ্টি হয়েছে । অধিক বৃষ্টিপাতের প্রভাবে আবহারিকার গ্রস্ত উচ্চভূমির প্রাচীন শিলাস্তর থেকে এলুভিয়েশান প্রক্রিয়ায় সিলিকা ও অন্যান্য দ্রবণীয় পদার্থ অপসারিত হয় এবং পড়ে থাকে লোহা । অ্যালুমিনিয়াম অক্সাইড ও হাইড্রেক্সাইড এবং সৃষ্টি হয় ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা । 

  1. ল্যাটেরাইট মাটির বৈশিষ্ট্য লেখো ।

Answer : ল্যাটেরাইট মাটির প্রধান বৈশিষ্ট্য হল— ( ১ ) এই মৃত্তিকা লাল , বাদামি ও হলদে বাদামি রঙের হয় । ( ২ ) এই মাটিতে জল থাকলে থকথকে কিন্তু শুকিয়ে গেলে শক্ত ইটের মতো হয়ে যায় । ( লাতিন শব্দ ল্যাটেরাইট এর অর্থ – ইট ‘ ) । ( ৩ ) লোহা , অ্যালুমিনিয়াম , ম্যাঙ্গানিজ অক্সাইড এই মৃত্তিকার প্রধান উপকরণ । ( ৪ ) বড়ো শক্ত দলার বা বিচ্ছিন্ন কাঁকরের মতো পদার্থ দিয়ে এটি সৃষ্ট । ( ৫ ) অন্যান্য খনিজ ও জৈব পদার্থ থাকে না বলে এটি অনুর্বর তাই চাষআবাদ খুব বেশি হয় না । ( ৬ ) ক্ষয়ীভবনের মাধ্যমে উচ্চভূমি থেকে এই মৃত্তিকা সমতলভূমির বিস্তীর্ণ অঞ্চলে সঞ্চিত হয় ।

  1. ল্যাটেরাইট মাটি অনুর্বর কেন ?

Answer : প্রাচীনকালের আগ্নেয় ও রূপান্তরিত শিলার ওপর গভীর আবহবিকারের প্রভাবে শিলাস্তরের উপরিভাগ থেকে সিলিকা ও অন্যান্য দ্রবণীয় খনিজ অপসারিত হয় এবং পড়ে থাকে লোহা ও অ্যালুমিনিয়াম অক্সাইড ও হাইড্রক্সাইড । বাদামি বর্ণের কাকর জাতীয় পদার্থ দিয়ে তৈরি এই মৃত্তিকায় জৈব পদার্থ চুন , ম্যাগনেশিয়াম , নাইট্রোজেন প্রভৃতির পরিমাণ খুবই কম । এই মাটির জলধারণ ক্ষমতাও খুব কম । তাই এই মাটি কৃষির পক্ষে একেবারে অনুর্বর ।

  1. পার্বত্য মৃত্তিকার বৈশিষ্ট্য লেখো ।

Answer : পার্বত্য মৃত্তিকার বৈশিষ্ট্যগুলি হল— ( ১ ) পার্বত্য অঞ্চলের মৃত্তিকার রং কালো ও ধুসর বাদামি । ( ২ ) এই মাটিতে পটাশ ও ফসফরাস কম , কিন্তু জৈব পদার্থের পরিমাণ বেশি । ( ৩ ) প্রকৃতিগতভাবে এই মাটি অম্ল এবং অনুর্বর । ( ৪ ) ধাপ চাষের মাধ্যমে চা , ফল , বার্লি , আলু , ধান , গম ও জোয়ার চাষ করা যায় ।

রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর | ভারতের মৃত্তিকা (ভারত – পঞ্চম অধ্যায়) – মাধ্যমিক ভূগোল সাজেশন | Madhyamik Geography Suggestion : 

1. ভারতের লোহিত মৃত্তিকা ও ল্যাটেরাইট মৃত্তিকার অবস্থান , বৈশিষ্ট্য ও গুরুত্ব লেখো ।

Answer : লোহিত মৃত্তিকা ( Red Soil ) : • অবস্থান : ভারতের প্রায় ১১ % এলাকা জুড়ে বিস্তৃত এই ধরনের মৃত্তিকা দাক্ষিণাত্য মালভূমির অন্তর্গত কর্ণাটক , তামিলনাড়ু , তেলেঙ্গানা , ওড়িশা প্রভৃতি রাজ্যের মালভূমি অঞ্চল , ঝাড়খণ্ডের ছোটোনাগপুর মালভূমিতে এবং উত্তর – পূর্ব ভারতের পার্বত্য অঞ্চল ও মেঘালয় মালভূমিতে এই মাটি দেখা যায় । 

বৈশিষ্ট্য : ( ১ ) লোহার পরিমাণ বেশি থাকায় সাধারণত এই মাটির রং লাল , তবে কোথাও কোথাও হলুদ রং – এর লোহিত মাটিও দেখা যায় । ( ২ ) বালি ও কাঁকরপূর্ণ হওয়ায় লোহিত মাটির জলধারণ ক্ষমতা খুব কম । ( ৩ ) এই মাটিতে লোহা ও অ্যালুমিনিয়ামের ভাগ বেশি , নাইট্রোজেন , চুন ও ফসফরাসের ভাগ কম এবং জৈব পদার্থ খুব কম থাকায় সাধারণভাবে এটি অনুর্বর । ( ৪ ) এই মৃত্তিকায় বালির ভাগ বেশি ও কাদার ভাগ কম বলে এথন সূক্ষ্ম প্রকৃতির । ( ৫ ) আৰ্দ্ৰ ঋতুতে এই মৃত্তিকা অত্যন্ত শক্ত । ( ৬ ) প্রধানত জলসেচের সাহায্যে লোহিত মৃত্তিকাযুক্ত অঞ্চলে রাগি , তৈলবীজ , জোয়ার ও সামান্য ধান উৎপন্ন হয় । সহায়িকা ,

 গুরুত্ব : লোহিত মৃত্তিকা অনুর্বর হলেও মিলেট , বাদাম , ভুট্টা , সয়াবিন , আঙুর ও কফি উৎপাদনের পক্ষে বিশেষ উপযোগী । জলসেচ ও সার প্রয়োগের মাধ্যমে এই মাটিতে ধান , তৈলবীজ , ডাল প্রভৃতির চাষ করা হয় । ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা ( Laterite Soil ) অবস্থান : কর্ণাটক , তামিলনাড়ু , অন্ধ্রপ্রদেশ , ঝাড়খণ্ড , আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ , পশ্চিমবঙ্গ ও মেঘালয়ের কয়েকটি অঞ্চলের প্রায় ২.৫ লক্ষ বর্গকিমি ( প্রায় ৮ % ) স্থানজুড়ে এই মৃত্তিকা দেখা যায় । 

বৈশিষ্ট্য : ( ১ ) সাধারণত এই মাটি ইটের মতো লাল রং – এর । তবে বাদামি ও হলুদ – বাদামি রং – এর ল্যাটেরাইট মাটিও দেখা যায় । ( ২ ) ল্যাটেরাইট মাটি শুকনো অবস্থায় ইটের মতো শক্ত হয় , তবে ভিজে অবস্থায় থকথকে হয়ে যায় । ( ৩ ) লোহা , ম্যাঙ্গানিজ অক্সাইড ও অ্যালুমিনিয়াম অক্সাইড এই মৃত্তিকার প্রধান উপাদান । ( ৪ ) বড়ো শক্ত দলার মতো পদার্থে কিংবা বিভিন্ন কাঁকরজাতীয় পদার্থে এই মৃত্তিকা গঠিত । কাঁকরপূর্ণ বলে এই মাটির জলধারণ ক্ষমতা বিশেষ । ( ৫ ) কাঁকর ও বালিপূর্ণ হওয়ায় এই মৃত্তিকার প্রথন স্থূল প্রকৃতির । ( ৬ ) ল্যাটেরাইট মাটিতে নাইট্রোজেন ও জৈব পদার্থ বিশেষ থাকে না বলে এবং মাটির জলধারণ ক্ষমতা না থাকায় সাধারণভাবে এই মাটি অনুর্বর । ( ৭ ) তবে জলসেচ ও সার প্রয়োগ করে কিছু কিছু অঞ্চলে ধান , চা , কফি ও রবার চাষ করা হয় । 

গুরুত্ব : এই মৃত্তিকা অনুবর বলে কৃষিকাজের সহায়ক নয় । তবে জলসেচ ও সার প্রয়োগের মাধ্যমে এই মাটিতে চা , কফি , রবার ও বাদামের চাষ হয় । গ্রামাঞ্চলে রাস্তাঘাট নির্মাণ এই মাটি ব্যবহৃত হয় ।

2. মৃত্তিকা সংরক্ষণ কোন্ কোন্ পদ্ধতিতে করা হয় ? 

Answer : মৃত্তিকা ক্ষয় প্রতিরোধ ও সংরক্ষণ ( Prevention of Soil Erosion & Conservation ) : যে বিজ্ঞানসম্মত পদ্ধতির মাধ্যমে মৃত্তিকাকে ক্ষয় ও অবনমনের হাত থেকে সম্পূর্ণ বা আংশিকভাবে রক্ষা করা যায় , তাকেই বলে মৃত্তিকা সংরক্ষণ । 

মৃত্তিকা সংরক্ষণের পদ্ধতিসমূহ ( Methods of Soil Conservation ) : 

( ১ ) বৃক্ষরোপণ ( Tree Planting ) : মৃত্তিকা সংরক্ষণের একটি গুরুত্বপূর্ণ পদ্ধতি হল বৃক্ষরোপণ । যেহেতু উদ্ভিদ তার শিকড়ের দ্বারা মৃত্তিকা কণাগুলিকে দৃঢ়ভাবে আটকে রাখে , সেই কারণে যদি নতুন বৃক্ষরোপণ করা যায় তাহলে মৃত্তিকা ক্ষয়ের পরিমাণ কমবে । 

( ২ ) ধাপ চাষ ( Terrace farming ) : ভারতে পাহাড়ি অঞ্চলে বিভিন্ন উচ্চতায় সিঁড়ির মতো ধাপ কেটে অর্ধচন্দ্রাকার সমতল জমি তৈরি করে সেখানে চাষ করা হয় । এই পদ্ধতিকে ধাপ চাষ বলা হয় । এর ফলে মৃত্তিকা ক্ষয় রোধ পায় । 

( ৩ ) সমোন্নতি রেখা চাষ ( Contour Ploughing ) : পার্বত্য উপত্যকার ঢালু জমিতে সমান উচ্চতা বরাবর ঢালের আড়াআড়িভাবে জমি কর্ষণ , বপন ও রোপণ করা হয় । এখানে আবার সমোন্নতি রেখা বরাবর দীর্ঘাকার উঁচু বাঁধ তৈরি করে ঢালের দিকে ভূপৃষ্ঠীয় প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করা হয় । এতে মৃত্তিকা ক্ষয় রোধ পায় । 

( 8 ) ফালি চাষ ( Strip Cropping ) : এই পদ্ধতিতে উদ্ভিদহীন ঢালু জমিতে বৃষ্টির গতি ও মাটি ক্ষয় বেশি হওয়ায় ঢালের আড়াআড়ি দিকে চওড়া ফিতের মতো জমি তৈরি করে ক্ষয়রোধী শস্য চাষ করে মৃত্তিকা ক্ষয় রোধ করা হয় । 

( ৫ ) গালি চাষ ( Gully ploughing ) গালি অঞ্চলে যেখানে জল প্রবাহিত হয় সেই প্রবাহপথে আড়াআড়িভাবে পাথর দিয়ে কৃত্রিমভাবে জল ধরে রেখে সেই জল দিয়ে চাষাবাদ করার ব্যবস্থা করা হয় । একে গালি চাষ বলে ।  

( ৬ ) ঝুম চায় রোধ : ঝুম চাষের ফলে প্রধানত মৃত্তিকা ক্ষয় হয় । যদি অবৈজ্ঞানিক প্রথায় এই ঝুম চাষ বন্ধ করা হয় , তাহলে মৃত্তিকার ক্ষয় রোধ পাবে । 

( ৭ ) মালচিং ( Mulching ) : জমি থেকে ফসল কেটে নেওয়ার পর মু গাছে যে অংশ মাটিতে পড়ে থাকে , তাকে মাটির আবরণ হিসেবে ব্যবহার করে পরবর্তী চাষ করা হয় । এই আবরণ একদিকে যেমন মৃত্তিকা ক্ষয় রোধ করে তেমনি মৃত্তিকায় জৈব পদার্থ সৃষ্টিতেও সাহায্য করে । 

( ৮ ) শেল্টার বেল্ট ( Shelter Belt ) কোনো স্থানে আবহাওয়া গত ক্ষয়ের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য যখন জমির চারপাশে বড়ো বড়ো গাছ সারিবদ্ধভাবে লাগানো হয় , তখন তাকে শেল্টার বেল্ট বলে । 

( ৯ ) শস্যাবর্তন ( Crop Rotation ) : একই জমিতে সারা বছর ধরে বিভিন্ন ফসল শস্যাবর্তন প্রক্রিয়ায় চাষ করলে সহায়িকা , মৃত্তিকার উর্বরতা বজায় থাকে ও মাটি ক্ষয়ের হাত থেকেও রক্ষা পায় । 

( ১০ ) নদীপাড়ে বাঁধ নির্মাণ ( Dam Construction ) : নদীর পাড়ে বা সমুদ্র উপকূলে বাঁধ নির্মাণ করলে বা কংক্রিট দিয়ে নদীর পাড় বাঁধলে মৃত্তিকা ক্ষয় কম হয় । 

( ১১ ) নিয়ন্ত্রিত পশুচারণ ( Control Overgrazing ) : ভূমির ওপর তৃণের আচ্ছাদন থাকলে মৃত্তিকাক্ষয় কম হয় । তাই নিয়ন্ত্রিত মাত্রায় পশুচারণ করলে মৃত্তিকাক্ষয় রোধ করা যায় । এ ছাড়াও মালচিং প্রক্রিয়ার চাষাবাদ করা , সঠিক শস্য } নির্ধারণ করা এবং বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে চাষ করা ইত্যাদির মাধ্যমেও মৃত্তিকার ক্ষয়রোধ করা হয় ।

3. ভারতের মৃত্তিকার শ্রেণিবিভাগ করে প্রধান একপ্রকার মৃত্তিকার অবস্থান , বৈশিষ্ট্য ও গুরুত্ব লেখো ।

Answer : ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের মৃত্তিকার উৎপত্তি , বৈশিষ্ট্য , উদ্ভিদের বিস্তার , শিলাস্তরের গঠন ও জলবায়ুর তারতম্য অনুসারে মৃত্তিকাকে প্রধান ছ – টি ভাগে ভাগ করা যায় । মৃত্তিকার প্রধান ভাগগুলি হল- ( ১ ) পলি মৃত্তিকা , ( ২ ) কৃষ্ণ মৃত্তিকা , ( ৩ ) লোহিত মৃত্তিকা , ( ৪ ) ল্যাটেরাইট মৃত্তিকা , ( ৫ ) পার্বত্য মৃত্তিকা এবং ( ৬ ) নরু ও শুষ্ক অঞ্চলের মৃত্তিকা । নিম্নে পলি মৃত্তিকার অবস্থান , বৈশিষ্ট্য ও গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা করা হল । 

পলি বা পাললিক মৃত্তিকা ( Alluvial Soil ) : অবস্থান : উত্তর ভারতে গঙ্গা , ব্রহ্মপুত্র ও সিন্ধু সমভূমি , দক্ষিণ ভারতের মহানদী , গোদাবরী , কৃষ্ণা ও কাবেরী অববাহিকার কয়েকটি অংশে এবং উপকূল বরাবর নদী দ্বারা বাহিত পলি সজ্জিত হয়ে এই মৃত্তিকা গঠিত হয়েছে । 

বৈশিষ্ট্য : ( ১ ) অবস্থানের তারতম্য অনুসারে এক – একটি অঞ্চলের পলিমাটির রং এক এক রকমের হয় । কোনো অঞ্চলের পলিমাটিতে বালির ভাগ বেশি , কোথাও আবার কাদার ভাগ বেশি । ( ২ ) পলিমাটিতে জৈব পদার্থ , ফসফরাস পটাশিয়ামের পরিমাণ বেশি , কিন্তু এই মাটিতে নাইট্রোজেনের পরিমাণ কম হলেও কৃষির পক্ষে অতি উর্বর । ( ৩ ) অঞ্চলবিশেষে পলিমাটির বিভিন্ন উপাদানের তারতম্যের ফলে এই মাটির উর্বরতারও তারতম্য হয় । ( ৪ ) মাটির জলধারণ ক্ষমতা বেশি বলে এটি উর্বর । 

গুরুত্ব : এই মাটি কৃষিকার্যের পক্ষে অত্যন্ত উর্বর বলে প্রায় সব ধরনের ফসলের চাষ এই মাটিতে করা হয় । যেমন- ধান , গম , ইক্ষু , তৈলবীজ , পাট আলু প্রভৃতি । ভারতের অধিকাংশ কৃষিজ ফসল এই মাটিতেই উৎপন্ন হয়ে থাকে । 

4. ভারতের রেগুর মৃত্তিকা ও পলি মৃত্তিকার অবস্থান , বৈশিষ্ট্য ও গুরুত্ব লেখো ।

Answer : রেগুর মৃত্তিকা বা কৃষ্ণ মৃত্তিকা ( Black Soil ) : 

অবস্থান : মহারাষ্ট্র , মধ্যপ্রদেশের পশ্চিম অংশ , গুজরাটের দক্ষিণ , অন্ধ্রপ্রদেশের উত্তর – পশ্চিম , কর্ণাটকের উত্তর এবং তামিলনাড়ুর উত্তর অংশের প্রায় ৫.৫০ লক্ষ বর্গকিমি ( ১৭ % ) স্থানজুড়ে আছে কৃষ্ণ মৃত্তিকা বা রেগুর । 

বৈশিষ্ট্য : ( ১ ) ব্যাসল্ট শিলা থেকে সৃষ্ট এই মৃত্তিকায় টাইটানিয়াম অক্সাইড ও জৈব যৌগের পরিমাণ বেশি থাকায় রং কালো । ( ২ ) বর্ষাকালে এই মাটি চটচটে কিন্তু শুষ্ক ঋতুতে বেশ শক্ত এবং ফাটলের সৃষ্টি হয় । ( ৩ ) পলি ও কাদার ভাগ ( ৫০ % -৮০ % ) বেশি থাকায় এখন মাঝারি বলে জলধারণ ক্ষমতা খুব বেশি । ( ৪ ) বিভিন্ন খনিজে সমৃদ্ধ হওয়ায় ( অ্যালুমিনা , চুন , ম্যাগনেশিয়াম , আয়রন । অক্সাইড ) মাটি খুব উর্বর । 

গুরুত্ব : এই মাটিতে কার্পাস , মিলেট , তৈলবীজ , তামাক ও পিঁয়াজের প্রচুর পরিমাণ চাষ হয় । এই মৃত্তিকা তুলো চাষের জন্য বিশেষ উপযোগী বলে একে ‘ Black Cotton Soil বলে ।

========================================

সঠিক উত্তর নির্বাচন কর (MCQ)

[প্রতিটি প্রশ্নের প্রশ্নমান ১]

1। যে প্রকার কৃষি পদ্ধতি মৃত্তিকা ক্ষয় বৃদ্ধি করে, তা হল –
ক) স্থানান্তর চাষ খ) ধাপচাষ গ) সমোন্নতিরেখা বরাবর কৃষি ঘ) ফালিচাষ

উত্তর- যে প্রকার কৃষি পদ্ধতি মৃত্তিকা ক্ষয় বৃদ্ধি করে, তা হল –ক) স্থানান্তর চাষ।

2। ল্যাটেরাইট মাটির জল ধারণ ক্ষমতা কম, কারণ এই মাটি –
ক) বালুকাপূর্ণ খ) কাঁকরপূর্ণ গ) কাদাযুক্ত ঘ) বাতাসপূর্ণ

উত্তর- ল্যাটেরাইট মাটির জল ধারণ ক্ষমতা কম, কারণ এই মাটি – খ) কাঁকরপূর্ণ।

3। বিভিন্ন নদী মোহনা অঞ্চলে যে মাটি দেখা যায়, তা হল –
ক) পলিমাটি খ) হিউমাস মাটি গ) লবণাক্ত পলিমাটি ঘ) লালমাটি

উত্তর- বিভিন্ন নদী মোহনা অঞ্চলে যে মাটি দেখা যায়, তা হল – গ) লবণাক্ত পলিমাটি।

4। উত্তর ভারতের সমভূমি অঞ্চলে নদী উপত্যকার পুরোনো পলিমাটিকে বলে –
ক) ভাঙ্গার খ) খাদার গ) পেডোক্যাল ঘ) ভুর

উত্তর- উত্তর ভারতের সমভূমি অঞ্চলে নদী উপত্যকার পুরোনো পলিমাটিকে বলে – ক) ভাঙ্গার।

5। বিভিন্ন নদী মোহনা অঞ্চলে যে মাটি দেখা যায়, তা হল –
ক) পলিমাটি খ) হিউমাস মাটি গ) লবণাক্ত পলিমাটি ঘ) লালমাটি

উত্তর- বিভিন্ন নদী মোহনা অঞ্চলে যে মাটি দেখা যায়, তা হল – গ) লবণাক্ত পলিমাটি।

6। খোয়াই বা খাত ক্ষয় কীভাবে ঘটে? –
ক) জলপ্রবাহ দ্বারা খ) বায়ুপ্রবাহ দ্বারা গ) সমুদ্র তরঙ্গ দ্বারা ঘ) কৃষিকার্যের দ্বারা

উত্তর- খোয়াই বা খাত ক্ষয় – ক) জলপ্রবাহ দ্বারা।

7। গ্র্যানাইট ও নিস শিলা ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে সৃষ্টি হয় –
ক) ল্যাটেরাইট খ) রেগুর গ) লাল মাটি ঘ) পলিমাটি

উত্তর- গ্র্যানাইট ও নিস শিলা ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে সৃষ্টি হয় – ঘ) লাল মাটি।

8। রাজস্থানের মরুভূমি অঞ্চলে যে প্রকার মাটি দেখা যায়, সেটি হল –
ক) পলিমাটি খ) লালমাটি গ) মরুমাটি ঘ) ল্যাটেরাইট মাটি

উত্তর- রাজস্থানের মরুভূমি অঞ্চলে যে প্রকার মাটি দেখা যায়, সেটি হল – গ) মরুমাটি।

9। কৃষ্ণ মৃত্তিকা দেখা যায় –
ক) দাক্ষিণাত্যের মালভূমি অঞ্চলে খ) বদ্বীপ অঞ্চলে গ) সমভূমি অঞ্চলে ঘ) উত্তরের পার্বত্য অঞ্চলে

উত্তর- কৃষ্ণ মৃত্তিকা দেখা যায় – ক) দাক্ষিণাত্যের মালভূমি অঞ্চলে।

10। মরু অঞ্চলের শুষ্ক ও শুষ্কপ্রায় মৃত্তিকাকে বলে –
ক) চারনোজেম খ) পডসল গ) সিরোজেম ঘ) ল্যাটেরাইট

উত্তর- মরু অঞ্চলের শুষ্ক ও শুষ্কপ্রায় মৃত্তিকাকে বলে – গ) সিরোজেম।

 

অতি সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন (VSAQ)

[প্রতিটি প্রশ্নের প্রশ্নমান ১]

1। ল্যাটেরাইট মাটিতে কোন খনিজ বেশি থাকে?
উত্তর- ল্যাটেরাইট মাটিতে লোহা বেশি থাকে।

2। পার্বত্য অঞ্চলের মাটি কি নামে পরিচিত?
উত্তর- পার্বত্য অঞ্চলের মাটি পডসল নামে পরিচিত।

3। হিমালয়ের পাদদেশীয় অঞ্চলের পলি, বালি, নুড়ি, কাকর পূর্ণ মাটির নাম কি?
উত্তর- হিমালয়ের পাদদেশীয় অঞ্চলের পলি, বালি, নুড়ি, কাকর পূর্ণ মাটির নাম হল

4। কৃষ্ণ মৃত্তিকার অপর নাম কি?
উত্তর- কৃষ্ণ মৃত্তিকার অন্য নাম রেগুর।

5। ভারতের মাটি ক্ষয়ের একটি মনুষ্যকৃত কারণ লেখ।
উত্তর- ভারতের মাটি ক্ষয়ের একটি মনুষ্যকৃত কারণ হল ত্রুটিপূর্ণ বা অবৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে কৃষিকাজ।

সংক্ষিপ্ত উত্তরভিত্তিক প্রশ্ন (SAQ)

[প্রতিটি প্রশ্নের প্রশ্নমান ২]

1। পডসল মৃত্তিকা কাকে বলে?
উত্তর- পডসল শব্দটি হল রুশ শব্দ। এর অর্থ হল ধূসর। উঁচু পার্বত্য অঞ্চলে সরলবর্গীয় বনভূমির লতাপাতা,কান্ড,ফুল, ফল প্রভৃতি প্রতিনিয়ত পড়ে এবং জমা হয়ে এক ধরনের ধূসর রঙের অম্ল প্রকৃতির জৈব পদার্থ সমৃদ্ধ যে অনুর্বর মাটির সৃষ্টি হয়,তাকে পডসল মৃত্তিকা বলে। উদাহরণ- পশ্চিম হিমালয় ও নীলগিরি পর্বত।

2। ভুর ও রেগুর কী?
উত্তর- ভুর-উচ্চ গাঙ্গেয় সমভূমির নিম্ন অঞ্চলে বালি মিশ্রিত অতি সুক্ষ মৃত্তিকা দিয়ে গঠিত ঢেউখেলানো উচ্চভুমি দেখা যায়। এই ধরনের মৃত্তিকা ভুর নামে পরিচিত। উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের পশ্চিমের দোয়াব অংশে এই মৃত্তিকা দেখা যায়।
রেগুর-দাক্ষিণাত্য মাল্ভূমির উত্তর-পশ্চিম অংশে লাভা গঠিত মালভূমির ব্যসল্ট শিলা থেকে উৎপন্ন যে অতি উর্বর কৃষ্ণ মৃত্তিকা দেখা যায়, তাকে রেগুর বলে। তেলেগু শব্দ ‘রেগাড়া’ থেকে এই নামের উৎপত্তি। এই মাটিতে কারপাস চাষ বেশী হয়।

3। সমোন্নতিরেখা চাষ কীভাবে মৃত্তিকাক্ষয় রোধ করে?
উত্তর- সমোন্নতি রেখা (আল বা নালার মাধ্যমে) বরাবর ঢালু পার্বত্য অঞ্চলে চাষ করার ফলে বৃষ্টির জল আলে বাধা পায় এবং মৃত্তিকার মধ্যে তা প্রবেশ করে এছাড়াও অধিক বৃষ্টিপাতযুক্ত অঞ্চলে অতিরিক্ত জল নালার দ্বারা বাইরে বেরিয়ে যাওয়ার সময় যাতে মৃত্তিকা ক্ষয় না করে তাই মৃত্তিকা ক্ষয়ের রোধের অন্যতম উপায় হিসাবে ধরা হয় এই সমন্নোতিরেখা বরাবর চাষকে।

4। পলিমাটি অত্যন্ত উর্বর হয় কেন?
উত্তর- পলিমাটি অত্যন্ত উর্বর হওয়ায় কারণগুলি হল–
ক) পলিমাটিতে প্রতিবছর নতুন করে পলি সঞ্চিত হয় ,
খ) এই মাটিতে কোথাও কাদার ভাগ বেশী আবার কোথাও কাদার ভাগ বেশী থাকে,
গ) এই মাটিতে যথেষ্ট পরিমাণে জৈব পদার্থ, ফসফরাসও পটাশিয়ামের পরিমাণ বেশী থাকায় এই মাটি উর্বর।

5। শারীরবৃত্তীয় শুষ্ক মৃত্তিকা কাকে বলে?
উত্তর- লবণের পরিমাণ বেশী হওয়ায় যে সমস্ত মৃত্তিকায় পর্যাপ্ত পরিমাণ জল থাকা সত্ত্বেও তা উদ্ভিদ গ্রহনে বাধা পায় সেই সমস্ত মৃত্তিকাকে শারীরবৃত্তীয় শুষ্ক মৃত্তিকা বলে।
উদাহরন- সুন্দরবনের লবণাক্ত মৃত্তিকা।
বৈশিষ্ট্য-
ক) অতিরিক্ত লবণের উপস্থিতি।
খ) এই মৃত্তিকায় অক্সিজেনের পরিমান কম থাকে।

বিশ্লেষণধর্মী প্রশ্ন উত্তর

[প্রতিটি প্রশ্নের প্রশ্নমান ৩]

1। ভারতের কোথায় কোথায় ঝুমচাষ করা হয় এবং কীভাবে করা হয়?
উত্তর- উত্তর -পূর্ব ভারতের অরুণাচল প্রদেশ,মিজোরাম, ত্রিপুরা,মেঘালয়, নাগাল্যান্ড প্রভৃতি রাজ্যে ঝুম চাষ করা হয়ে থাকে।
ঝুমচাষ একটি স্থান পরিবর্তনশীল কৃষি। পাহাড়ি উপজাতির লোকেরা শীতকালে বা গ্রীষ্মকালে পাহাড়ি অরণ্যভূমি কেটে তাতে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং গাছের ছাই মাটিতে মিশে মাটিকে উর্বর করে তোলে। বর্ষাকালে ঐ মাটিতে ধান, ভুট্টা, আখ,তুলো প্রভৃতি ফসল চাষ করা হয়। এইভাবে একস্থানে তিন- চার বছর চাষ হয়ে গেলে মাটি অনুর্বর হয়ে পড়ে এবং তার আবার নতুন অরণ্যভূমিতে চলে যায় একইভাবে চাস-আবাদের জন্য।

2। কৃষির ওপর রেগুর মৃত্তিকার প্রভাব কীরূপ?
উত্তর- তেলেগু শব্দ ‘রেগাড়া’ থেকে এই রেগুড় শব্দের উৎপত্তি। রেগুড় হল কৃষ্ণ মৃত্তিকার ওপর নাম। এই মাটিতে চুন, ম্যাগনেশিয়াম, পটাশ যথেস্ট পরিমাণে থাকায় এই মাটি খুব উর্বর হয় এবং মাটির কণা সূক্ষ্ম হওয়ায় মাটির জল্ধারণ ক্ষমতা বেশী হয়। এই কারণবশত এই মাটিতে চাস-আবাদ খুব ভালো হয়। বিশেষ করে তুলো এই মাটিতে খুব ভালো হয়। এছাড়া আখ, চিনাবাদাম, তিসি ,তামাক, পিঁয়াজ প্রভৃতি প্রচুর পরিমাণে উৎপন্ন হয়। রেগুর মৃত্তিকার কারণেই দাক্ষিণাত্য মালভূমি ভারতের এক অন্যতম কৃষিক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে।

3। ঢীকা লেখো মৃত্তিকা সংরক্ষণ।
উত্তর- বৃষ্টির জলে বা অনিয়ন্ত্রিত চাষবাসের ফলে যাতে মৃত্তিকা ক্ষয় না হয় তার জন্য কতকগুলি পদ্ধতি অবলম্বন করা হয় যার মাধ্যমে মৃত্তিকা সংরক্ষণ হয় ও ভূমিক্ষয় নিবারিত হয়। সেগুলি হল-
ক) ব্যপকভাবে বৃক্ষরোপণ করা।
খ) শস্যবর্তন পদ্ধতিতে কৃষিকাজ।
গ) নিয়ন্ত্রিতভাবে পশুচারণ করা।
ঘ) ঝুম চাষ নিয়ন্ত্রণ করা ও বিজ্ঞাসম্মতভাবে চাষ আবাদ করা।
ঙ) পার্বত্য ও মালভূমি অঞ্চলে ভূমির ঢাল অনুসারে চাষ করা।
চ) পতিত বা উন্মুক্ত জমিকে চাষের উপযোগী করে তোলা।
ছ) সমোন্নতি রেখা বরাবর চাষ।

দীর্ঘ উত্তরভিত্তিক প্রশ্ন (LA)

[প্রতিটি প্রশ্নের প্রশ্নমান ৫]

1। ভারতের পলি মৃত্তিকা বণ্টন এবং বৈশিষ্ট্যগুলি আলোচনা করো।
উত্তর- ভারতে পলি মৃত্তিকার বন্টন-
ভারতের প্রধান নদী গঙ্গা ও অসম ব্রহ্মপুত্রের নদী অববাহিকায় এই মাটির প্রধান্য সবচেয়ে বেশী। এছাড়াও ভারতের পূর্ব ও পশ্চিম উপকূল বরাবর এই মৃত্তিকা দেখা যায়। এবং উত্তরপ্রদেশ, বিহার,পাঞ্জাব, হরিয়ানা এবং পশ্চিম সহ একাধিক রাজ্যে এই মৃত্তিকা দেখা যায়।পশ্চিমবঙ্গে সুন্দরবন অঞ্চল বরাবর এই মৃত্তিকা লক্ষ্য করা যায়।
পলি মৃত্তিকা বৈশিষ্ট্য-
ক) নদীর পলি বালি সঞ্চয়ের ফলে পলি মৃত্তিকার সৃষ্টি হয়।
খ) পলি মৃত্তিকা খুবই উর্বর প্রকৃতির।
গ) পলি মৃত্তিকাকে দুটি ভাগে ভাগ করা হয় – পুরানো পলি মৃত্তিকা ও নবীন পলি মৃত্তিকা।
ঘ) পুরানো পলি মৃত্তিকাকে ভাঙ্গর বলে, এই মৃত্তিকার জল ধারণ ক্ষমতা কম এবং রঙ গাঢ় হয়ে থাকে।
ঙ)পুরানো পলি মৃত্তিকা স্থূল গ্রথনের হয়।
চ) নবীন পলি মৃত্তিকাকে খাদার বলে, প্রতি বছর পলি সঞ্চয়ের ফলে এই মৃত্তিকা খুবই উর্বর হয়। ছ) নবীন পলি মৃত্তিকার রঙ ধূসর।
জ) পলি মাটিতে ধান গম তুলা পাট আখ প্রভৃতি চাষ খুব ভালো হয়।
ঝ) এছাড়াও পলি মৃত্তিকার আর একটি ভাগ হল উপকূলের পলি মাটি।
ঞ) সামুদ্রিক পলি বালি নিয়ে এই মাটি গঠন হয়।
ট) এই মাটিতে খনিজ লবনের আধিক্য থাকায় মাঝারি উর্বরা শক্তি বেশী হয়।
ঠ) এই মাটির হালকা ধূসর রঙের হয়।
ড) নিম্ম ব-দ্বীপ অঞ্চলে এই মাটিতে ম্যানগ্রোভ উদ্ভিদ বেশী জন্মাতে দেখা যায়।

 ©kamaleshforeducation.in(2023)

 

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *