WEST BENGAL HEALTH SCHEME (WBHS)-PART-3

WBHS নিয়ে তৃতীয় পর্বের আলোচনা,

বিষয় – OPD treatment

 WBHS এর সুবিধা পাওয়া নিয়ে অনেক সহকর্মী বন্ধুর অনেক অভিযোগ থাকে। হাসপাতালের অসহযোগিতা, অফিসের অসংবেদনশীল মনোভাব ইত্যাদি বিষয়ে অনেক বিতর্কের অবকাশ আছে এবং স্বাভাবিক ভাবেই সেই বিতর্ক অনেক সময় রাজনৈতিক রূপ নেয়। ব্যক্তিগত ভাবে এতে আমার আগ্রহ প্রবল।  কিন্তু কোনরূপ  বিতর্কে না গিয়ে কেবলমাত্র আইনগত দিকগুলো তুলে ধরার চেষ্টা করছি।
লেখার সময়ে অনেক ক্ষেত্রেই বাংলা ও ইংরেজী ভাষার মিশেল ঘটেছে। এছাড়া software গত কারনে কয়েক জায়গায় যুক্তাক্ষরের ক্ষেত্রে কিছু বানান ভুল থাকতে পারে। এগুলো দয়া করে মার্জনা করবেন।
ধন্যবাদ।
WBHS এর অধীনে OPD এবং Indoor and related OPD/ Day Care and related OPD দু’ধরনের চিকিৎসার সুযোগ পাওয়া যায়।
OPD বা indoor কোনো ক্ষেত্রেই medical reimbursement এর কোনো উর্দ্ধসীমা (annual coverage, maximum admissible claim per year etc) নেই। দুটি চিকিৎসার মধ্যে কোনো ন্যূনতম অন্তর্বর্তীকালীন সময়সীমা (time gap) নেই। একাধিক রোগের চিকিৎসা একসাথে চলার ক্ষেত্রেও reimbursement এর বিষয়ে কোনো বিধিনিষেধ নেই। OPD তে cashless চিকিৎসার কোনো সুযোগ নেই।

1. OPD এর ক্ষেত্রে মোট 16 টি রোগের চিকিৎসার সুযোগ পাওয়া যায়।

(i) Malignant diseases(Mainly cancer)
(ii) Tuberculosis
(iii) Hepatitis B/C and other liver diseases
(iv) Insulin dependent diabetes (Type-2 Diabetic Melitas is not considered as insulin dependent diabetes)
(v) Heart diseases
(vi) Neurological disorder/Cerebrovascular disorders
(vii) Malignant Malaria
(viii) Renal failure
(ix) Thallasaemia/Bleeding orders/Platelet disorders
(x) Injuries caused by accident(including animal bite)
(xi) Rheumatoid Arthritis
(xii) Systematic Lupus Erytthematous (LUPUS)
(xiii) Crohn’s Disease
(xiv) Endodontic Treatment (Root Canal Treatment)
(xv) COPD (Chronic Obstructive Pulmonary Disease)
(xvi) Ankylosing Spondylitis
2. a) এছাড়াও Neuro Surgery , Cardiac Surgery, Renal transplant, Hip/Knee replacement surgery, cancer surgery including Chemotherapy and Radiotherapy এগুলির follow up চিকিৎসার খরচ OPD ভিত্তিতে পাওয়া যাবে।
b) এর সাথে indoor related OPD চিকিৎসার কোনো যোগসূত্র নেই।
3) উপরোক্ত সমস্ত রোগ ছাড়াও অন্য যে কোনো রোগের ক্ষেত্রে MRI, CT scan, Ultrasonography, Endoscopy, Colonoscopy, Sigmoidoscopy, ERCP এই সমস্ত পরীক্ষার খরচ reimburse করা যাবে। তবে এক্ষেত্রেও WBHS empanelled হাসপাতালে ডাক্তার দেখাতে হবে এবং WBHS empanelled হাসপাতাল বা diagnostic center থেকে পরীক্ষা করাতে হবে।
4) WBHS এর ক্ষেত্রে Non Empanelled হাসপাতালে OPD চিকিৎসার কোনো সুযোগ নেই।
5) উপরোক্ত রোগের ক্ষেত্রে ডাক্তার দেখাতে (OPD consultation) হবে Empanelled হাসপাতালে। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী কোনো পরীক্ষা করাতে হলে সেই হাসপাতালেই করাতে হবে এমন কোনো নিয়ম নেই। তবে অন্য কোনো হাসপাতালে বা পরীক্ষা কেন্দ্র (Diagnostic Center) থেকে করালে সেটাও WBHS empanelled হওয়া চাই। কোনো চিকিৎসকের private chamber এ ডাক্তার দেখিয়ে empanelled hospital বা diagnostic center এ পরীক্ষা করালে সেটাও WBHS এর reimbursement জন্য উপযুক্ত নয়। ওষুধ কেনার ক্ষেত্রে এই জাতীয় কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। যে কোনো দোকান থেকে কেনা যায়।
6) Diagnostic center শুধু মাত্র পরীক্ষা করানোর জন্য। অনেক diagnostic center এ পলিক্লিনিক বা ওইজাতীয় কিছু থাকে যেখানে ডাক্তার দেখানোও যায়। কিন্তু WBHS এর ক্ষেত্রে কোনো diagnostic center থেকে ডাক্তার দেখালে reimbursement এর জন্য সেটা বৈধ নয়। ডাক্তার দেখাতে হবে empanelled হাসপাতালেই।
7) OPD চিকিৎসার ক্ষেত্রে cashless সুবিধা নেই।
😎 Reimbursement এর জন্য claim জমা দেওয়ার সময়সীমা ডাক্তার দেখানোর দিন (date of OPD consultation) থেকে 6 মাস, আগে ওটা 3 মাস ছিল। ওই সময়ের মধ্যে জমা দিতে না পারলে কিন্তু এক বছর সময়সীমার মধ্যে জমা করলে claim টি sanction করতে পারবেন একমাত্র Head of the Department. তিনি দেরী হওয়ার কারন (delay in submission) খতিয়ে দেখে সন্তুষ্ট হলে তবেই sanction করবেন। আর এক বছর সময়সীমার মধ্যেও যদি জমা না পড়ে তাহলে সেই টা পাঠাতে হবে অর্থ দপ্তরের মেডিকেল সেলে। অর্থ দপ্তরের মেডিকেল সেলের কর্মী এবং আধিকারিক বিষয়টি খতিয়ে দেখে দেরী হওয়ার যথাযথ কারন সম্পর্কে নিশ্চিত হলে বিষয়টি condemned হবে। আর বিশেষ কোনো পরিস্থিতি ছাড়া যদি জমা দিতে 2 বছরের থেকেও বেশি সময় লাগে তাহলে আর সেই reimbursement claim কোনো ভাবেই sanction হবে না।
9) a) যখন কোনও চিকিৎসা ধারাবাহিক ভাবে চলে বা বলা ভাল যেসব ক্ষেত্রে অনির্দিষ্ট কালের জন্য ওষুধ খেয়ে যেতে হয় (অবশ্যই empanelled হাসপাতালের চিকিৎসকের prescription অনুযায়ী) সেইসব ক্ষেত্রে একসাথে সর্বোচ্চ 3 মাসের ওষুধ কেনার অনুমোদন রয়েছে। অর্থাৎ যদি prescription এ ওষুধ খাওয়ার নির্দিষ্ট সময়সীমা না বলা থাকে (continue the medicines till further advice বা এই জাতীয় কিছু লেখা থাকে) তবে এই নিয়ম প্রযোজ্য হবে। অনেকেই ধরে নেন যে continuous treatment হলেই একবারে সর্বোচ্চ 3 মাসের ওষুধ কেনার অনুমোদন আছে। তেমনটা নয়। 3 মাসের ওষুধ কেনার অনুমোদন দেওয়া হয় যখন দীর্ঘদিন যাবৎ ওষুধ খেয়ে যেতে হয়, কোনো নির্দিষ্ট সময়ের জন্য নয় (for indefinite period)। কিন্তু যদি কোনো ধারাবাহিক চিকিৎসার (continuous treatment) prescription এ 4 মাসের ওষুধ খাওয়ার নির্দেশ দেওয়া থাকে বা “review after 4 months” এই ধরনের কথা লেখা থাকে তাহলে সেক্ষেত্রে একবারে 4 মাসের ওষুধ কিনতে বাধা নেই। কারন continuous treatment হলেও 4 মাস হচ্ছে definite period. অর্থাৎ continuous treatment হলেই যে indefinite period এর জন্য ওষুধ খেতে হবে এমন নয়, 3/4/5 মাস অন্তর review হতে পারে। সেই 3/4/5 মাস সময়টা হচ্ছে definite period. এক কথায় continuous treatment আর indefinite period এক নয়। যখন indefinite period এর জন্য ওষুধ খেতে হবে তখন সর্বোচ্চ 3 মাসের ওষুধ একবারে কেনা যাবে এবং সেইসব ক্ষেত্রে claim জমা দেওয়ার সময়সীমা ওষুধ কেনার দিন থেকে 3 মাস (এই আদেশনামাটি সম্ভবত সংশোধিত হয়ে 6 মাস হতে পারে, যেহেতু আগেরটাও 3 থেকে বেড়ে 6 মাস হয়েছে)।
b) রাজ্যের বাইরের WBHS empanelled হাসপাতালের ক্ষেত্রে এই সময়সীমা 6 মাস।
10) OPD চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনে 80 শতাংশ পর্যন্ত অগ্রিম নেওয়া যায়। তবে শুধুমাত্র ক্যান্সার, বিটা -থ্যালাসেমিয়া, হেপাটাইটিস সি এই কটা রোগের সর্বোচ্চ 60 দিনের চিকিৎসার জন্য অগ্রিম পাওয়া যায়।
11) আগে চিকিৎসা শুরুর 3 দিনের মধ্যে অফিসে লিখিত ভাবে জানাতে হতো (intimation)। বর্তমানে আর ওই নিয়ম নেই।
12) OPD চিকিৎসার claim যদি 5000 টাকার মধ্যে হয় তাহলে সেটা সংশ্লিষ্ট অফিস (যেখানে WBHS enrolled আছেন) অনুমোদন করবে, অন্য কোথাও পাঠাতে হবে না । যদি 5001 টাকা থেকে 10000 টাকা পর্যন্ত হয় তাহলে সেটা অনুমোদন করতে পারবেন Director বা সমতুল্য পদমর্যাদার আধিকারিক। সুতরাং সেটা পাঠাতে হবে সংশ্লিষ্ট Directorate বা সমতুল্য অফিসে। আর 10000 টাকার বেশি হলে অনুমোদন দিতে পারবেন একমাত্র head of the Department. অর্থাৎ সেটা যাবে সংশ্লিষ্ট Department বা সমতুল্য অফিসে। এটা শুধুমাত্র OPD চিকিৎসার ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। Indoor related OPD চিকিৎসার সাথে এর কোনো সম্পর্ক নেই। Indoor related OPD চিকিৎসার reimbursement claim টা indoor reimbursement claim এর সাথে যুক্ত হয়ে যায়।
তবে অনুমোদন যিনিই দিন, Claim জমা দিতে হবে নিজের অফিসে বা যে অফিস থেকে enrolled হয়েছেন সেখানে।
13) এখন OPD reimbursement claim জমা দেওয়ার জন্য online এবং offline দুরকম ব্যবস্থা থাকলেও online system এখনও পুরোপুরি update না হওয়ায় offline system এর সাহায্যেই জমা দিতে হবে। C-1 form পূরণ করে claim জমা দিতে হয়। সাথে সাধারণত prescription এর photocopy, bill and money receipt in original, enrollment certificate এর photocopy (কর্মচারী এবং রোগীর অর্থাৎ beneficiary) এবং যদি কোনো বিশেষ অনুমোদন থাকে তাহলে সেই নথিপত্র। এর, সাথে জমা দিতে হয় annexure – I. এতে রোগীর নাম, identification number, রোগের নাম ইত্যাদি লিখে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের কাছ থেকে certify করিয়ে claim এর সাথে জমা দিতে হয়। সাধারণত reimbursement এর জন্য medical investigation report জমা দেওয়ার প্রয়োজন হয় না (যদি থাকে) তবুও সমস্ত report হাতের কাছে রাখতে হবে যাতে প্রয়োজন পড়লে জমা দেওয়া যায়।
14) একটা ধোঁয়াশা আছে অনেক কর্মচারীর মধ্যে। prescription এ যতদিন ওষুধ খেতে বলা হবে (indefinite period বাদে) সবটা কিনে একবারে claim জমা দিতে হবে নাকি মাসে মাসে বা প্রতি 2/3 মাস অন্তর এক prescription এ একাধিকবার claim জমা দেওয়া যাবে। এই বিষয়ে নির্দিষ্ট কোনো আদেশনামা নেই। তবে query No. 2888 and 2889 dt 17.06.2020 অনুযায়ী একবারে জমা দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে।

OPD claim জমা দেওয়ার আগে কয়েকটা বিষয় একটু দেখে নেবেন।

 

• প্রত্যেকটা bill, money receipt, prescription, report ইত্যাদিতে রোগীর নামের বানান, তারিখ, referral doctor এর নাম ঠিকঠাক আছে কিনা।
• হয় prescription অথবা annexure -I এ ডাক্তারের ডিগ্রীর উল্লেখ আছে কিনা। দুটোতেই থাকলে ভালো হয়। তবে annexure-I এ যেন অবশ্যই থাকে registration number সহ। মনে রাখবেন FRCS, MRCP এগুলো কিন্তু ডিগ্রী নয়। MBBS, MD, MS, DM, Mch এগুলো ডিগ্রী।
• সম্ভব হলে চিকিৎসককে অনুরোধ করে prescription এর উপরে রোগের নাম উল্লেখ করিয়ে নেবেন WBHS এ ব্যবহৃত terminology অনুসারে।
• Prescription ওষুধের নাম, কতদিন ওষুধ খেতে হবে, review or follow up করতে হলে সেটা কতদিন পর, কোনো পরীক্ষা করাতে হলে তার উল্লেখ এই বিষয়গুলো যেন prescription পড়ে সহজে বুঝতে পারা যায় সেটা একটু খেয়াল রাখবেন। প্রয়োজনে ডাক্তারবাবুকে বিনীত ভাবে অনুরোধ করবেন যাতে সমস্ত বিষয়গুলো সুস্পষ্ট ভাবে উল্লেখ করেন। অনেক ক্ষেত্রেই পুনর্বার দেখানোর সময় (review)ডাক্তারবাবুরা লিখে দেন “continue all the previous medicines “ বা এই জাতীয় কিছু। অনুরোধ করবেন ওষুধের নামগুলো আর একবার লিখে দিতে। চিকিৎসক অনেক সময় prescription এর উল্টো দিকে সাদা পাতায় ওষুধের নাম লিখে থাকেন। সেক্ষেত্রে তাঁর তারিখ সহ সই করিয়ে নেবেন এবং হাসপাতালের seal লাগিয়ে নেবেন। এক কথায় যতটা সম্ভব জটিলতা এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করবেন।
• Prescription এ লেখা সমস্ত ওষুধের দাম reimbursement নাও হতে পারে, যেমন কিছু ভিটামিন, food supplement ইত্যাদি।
6586-F (MED) dt 29.06.2011 (CLICK HERE)আদেশনামায় list of inadmissible items দেওয়া আছে।

kamaleshforeducation.in(2023)  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *