WEST BENGAL HEALTH SCHEME(WBHS)-PART-1

WEST BENGAL HEALTH SCEHEME

WBHS আলোচনা পর্ব – 1

A BRIEF GUIDELINE OF WBHS তথ‌্যটি সংকলনটি প‌শ্চিমবঙ্গ রাজ‌্য সরকারী কর্মচারী‌দের ম‌ধ্যে WEST BENGAL HEALTH SCHEME সম্পর্ক‌ে একটা স্বচ্ছ ধারনা দেবে।
কিন্তু ম‌নে রাখ‌তে হ‌বে এই তথ‌্য সংকলন‌টি কোন রূপ সরকারী স্বীকৃত প্রাপ্ত নয়।WBHS এর নিয়মাবলীর ব‌্যবহা‌রিক প্রয়ো‌গের ক্ষে‌ত্রে এ‌টি প্রামান‌্য ন‌থি হিসা‌বে গ্রহ‌্য হ‌বেনা।
এ‌তে কোন রূপ ত‌থ‌্য বা প‌রিসংখ‌্যান বা সরকারী আ‌দেশ নামার বিকৃ‌তি ঘটা‌নো হয়‌নি।
অনেক সহকর্মী বন্ধু এবং অবসরপ্রাপ্ত প্রাক্তন সহকর্মী বিভিন্ন সমযে WBHS এর বিষয়ে জানতে চান। আমি WBHS এর বিভিন্ন নিয়ম পদ্ধতি বেশ কয়েকটি পর্ব‌ে বিভক্ত করে আলোকপাত করার একটা চেষ্টা করছি।
এমনিতে WBHS এর নিয়মকানুনের পরিধি অনেকটাই। সীমিত পরিসরে সমগ্র বিষয়টাকে তুলে ধরা বেশ কঠিন। এরই মধ্যে প্রধান এবং গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো তুলে ধরার চেষ্টা করছি। যথাসম্ভব সঠিক তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করেছি।

========================

প্রথম বিষয় হচ্ছে Enrollment

=========================

*West Bengal Health Scheme 2008 যা বর্তমানে পরিচিত West Bengal Health for All Employees and Pensioners Cashless Medical Treatment Scheme 2014 নামে Enrollment বা অন্তর্ভুক্তি এবং অন্যান্য সুযোগ সুবিধা কর্মচারী, পেনশনার এবং ফ্যামিলি পেনশনারদের ক্ষেত্রে প্রায় একই রকম। তাই লেখার সংক্ষিপ্তকরনের জন্য শুধুমাত্র কর্মচারী বলে উল্লেখ করা হল। ব্যতিক্রমী কিছু থাকলে আলাদা ভাবে উল্লেখ করে দেওয়া হয়েছে।*

*কারা এই স্কীমের আওতায় আসতে পারেন:-*

*A) পঃবঃ রাজ্য সরকারী কর্মচারী নিজে। চাকরিতে যোগদানের সাথে সাথেই আবেদন করতে পারবেন। যে মাসে আবেদন করবেন তার পরের মাসের পয়লা তারিখ থেকে কার্যকর হবে ও সেই দিন থেকেই WBHS এর সমস্ত প্রকার সুযোগ সুবিধা পাবেন। কোনো Lock in period নেই। GPF number না থাকলেও enrolled হতে পারবেন। পেনশনারদের ক্ষেত্রেও PPO number না থাকলেও enrolled হতে সমস্যা নেই।*

নবনিযুক্ত কর্মচারীদের ক্ষেত্রে enrollment এর সময়সীমা নিযোগের দিন থেকে 2 বছর পর্যন্ত হলেও নতুন এক আদেশনামা অনুযায়ী 31.01.2021 এর মধ্যে এর জন্য আবেদন (online enrollment) করতে বলা হয়েছে।*
*যারা WBHS থেকে opt out করে বেরিয়ে গিয়েছিলেন তারাও আবার নতুন করে enrolled হতে পারবেন।*

B)কর্মচারীর স্ত্রী অথবা স্বামী (মহিলা কর্মীদের ক্ষেত্রে) এক্ষেত্রে

 

*1) স্বামী স্ত্রী উভয়েই পঃবঃ রাজ্য সরকারী কর্মচারী হলে আলাদা ভাবে নিজের নিজের অফিসে অন্তর্ভুক্ত হতে পারবেন। সন্তান (এক বা একাধিক) যে কোনো একজনের beneficiary হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হতে পারে। উভয়েই নিজের বাবা, মা, ভাই, বোনকে beneficiary হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করতে পারবেন নির্দিষ্ট শর্তসাপেক্ষে। দুজনের মধ্যে কেউই Medical Allowance পাবেন না।*
*অথবা*
*2) স্বামী স্ত্রী উভয়েই পঃবঃ রাজ্য সরকারী কর্মচারী হলে একজন অপরজনের beneficiary হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হতে পারবেন। তবে সেক্ষেত্রে beneficiary নিজের বাবা, মা ভাই বা বোন দের beneficiary হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করতে পারবেন না। তাই দুজনেই পঃবঃ রাজ্য সরকারী কর্মচারী হলে আলাদা ভাবে নিজের নিজের অফিসে অন্তর্ভুক্ত হওয়াই যুক্তিযুক্ত। আর beneficiary হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হলেও Medical Allowance পাওয়া যাবে না। সেক্ষেত্রে যিনি beneficiary হবেন তিনি নিজের অফিসে আবেদন করে Medical Allowance কাটানোর উদ্যোগ নেবেন এবং তার সপক্ষে একটা certificate নেবেন।*
*3) স্বামী স্ত্রীর মধ্যে কেউ একজন যদি পঃবঃ রাজ্য সরকারী কর্মচারী হয়ে থাকেন এবং অপরজন না হন কিন্তু অন্য সংস্থায় চাকরি করেন (শিক্ষকতা, কেন্দ্রীয় সরকারী কর্মচারী, আধা সরকারী বা বেসরকারী ইত্যাদি) যেখানে Medical Allowance দেওয়া হয় সেক্ষেত্রে তিনি অপর জনের (যিনি পঃবঃ রাজ্য সরকারী কর্মচারী এবং স্কীমটির অন্তর্ভুক্ত আছেন) beneficiary হিসেবে নথিভুক্ত হতে পারবেন একই ভাবে 2 নং পদ্ধতি অনুসরণ করে। অর্থাৎ এক্ষেত্রেও Medical Allowance পাবেন না এবং beneficiary হিসেবে কাউকে অন্তর্ভুক্ত করতে পারবেন না।*
*4) স্বামী স্ত্রীর মধ্যে কেউ একজন যদি পঃবঃ রাজ্য সরকারী কর্মচারী হয়ে থাকেন এবং অপরজন না হন কিন্তু অন্য সংস্থায় চাকরি করেন যেখানে Medical Allowance দেওয়া হয় না অথবা অন্য কোনো উপায়ে আয় করেন (ব্যবসা ইত্যাদি) বা কোনো আয় করেন না সেক্ষেত্রে তিনি অপর জনের (যিনি পঃবঃ রাজ্য সরকারী কর্মচারী এবং স্কীমটির অন্তর্ভুক্ত আছেন) beneficiary হিসেবে নথিভুক্ত হতে পারবেন কোনরূপ শর্ত ছাড়াই।
স্বামী স্ত্রীর ক্ষেত্রে একজনের সাথে অপরজনের অন্তর্ভুক্তির ক্ষেত্রে Medical Allowance কাটানো ছাড়া (যেখানে প্রযোজ্য) আর কোনরূপ শর্ত নেই।*
*C) কর্মচারীর উপর নির্ভরশীল বাবা ও মা। সেক্ষেত্রে তাঁদের মাসিক আয় সর্বোচ্চ 3500 টাকার মধ্যে হতে হবে। পেনশনারদের ক্ষেত্রে আয় হিসেবে ধরা হবে basic pension before commutation. কর্মচারীকে প্রতি বছর জানুয়ারি মাসে তার বাবা মায়ের আয় সম্পর্কে একটি লিখিত ঘোষণা অফিসে জমা দিতে হবে।*
*D) কর্মচারীর উপর নির্ভরশীল ছেলে (এক বা একাধিক)। 1500 টাকার বেশি মাসিক আয় না হওয়া পর্যন্ত বা 25 বছর বয়স পর্যন্ত যেটা আগে হবে। তবে স্থায়ীভাবে শারীরিক বা মানসিক প্রতিবন্ধী হলে বয়সের কোনো উর্দ্ধসীমা নেই।*
এবং 6722-F (MED) dt. 09.07.2009*(CLICK HERE)
*E) কর্মচারীর উপর নির্ভরশীল মেয়ে (অবিবাহিতা, বিধবা, বিবাহবিচ্ছিন্না) 1500 টাকার বেশি মাসিক আয় না হওয়া পর্যন্ত।*
*F) কর্মচারীর উপর নির্ভরশীল নাবালক ভাই। 1500 টাকার বেশি মাসিক আয় না হওয়া পর্যন্ত।*
G) কর্মচারীর উপর নির্ভরশীল বোন (অবিবাহিতা, বিধবা, বিবাহবিচ্ছিন্না) 1500 টাকার বেশি মাসিক আয় না হওয়া পর্যন্ত।
* ছেলে, মেয়ে, ভাই, বোন সকলের ক্ষেত্রে নির্ভরশীলতার শর্ত হল সর্বোচ্চ 1500 টাকা মাসিক আয় এবং কর্মচারীর সাথে বসবাস করা। বাবা মায়ের ক্ষেত্রে এই আয়ের উর্দ্ধসীমা মাসে 3500 টাকা।তবে এক্ষেত্রে কর্মচারীর সাথে একত্রে বসবাস করার শর্ত নেই।*
*ক্যান্সার, অঙ্গ প্রতিস্থাপন, হার্টের জটিল অস্ত্রোপচার সহ কিছু জটিল রোগে আক্রান্ত হলে beneficiar, দের enrollment এর ক্ষেত্রে আয়ের উর্দ্ধসীমা নেই। সেক্ষেত্রে তাঁদের special category হিসেবে enrollment হবে একই পদ্ধতিতে।*
*• কর্মচারীর নবজাতক সন্তান জন্ম তারিখ থেকে 6 মাস বয়স পর্যন্ত তার বাবা মায়ের enrollment. certificate এর ভিত্তিতেই WBHS এর সুবিধা ভোগ করতে পারবে। তারপর আলাদা ভাবে তার enrollment করাতে হবে। তবে 12 বছর বয়স পর্যন্ত WBHS portal এ তার সই upload করার কোনো প্রয়োজন নেই। তার জায়গায় বাবা অথবা মায়ের (যে কর্মচারীর beneficiary) সইতেই
কাজ হবে।*
* Step children এবং আইনগত ভাবে দত্তক নেওয়া সন্তানও WBHS এর সুবিধা পাবে একই রকম ভাবে।*
*• যদি কোনো beneficiary WBHS enrolled হওয়ার উপযুক্ত আর না থাকেন (বয়স, আয়, মৃত্যু ইত্যাদি কারণে) তাহলে সেক্ষেত্রে কর্মচারীর দায়িত্ব হচ্ছে বিষয়টা অবিলম্বে তার দপ্তরকে লিখিত ভাবে জানানো যাতে সেই beneficiary কে beneficiary list থেকে বাদ দেওয়া যায়।*
*• পেনশনারদের ক্ষেত্রে একটা ব্যতিক্রমী বিষয় হচ্ছে তাঁরা চাইলে তাঁদের বাসস্থানের নিকটবর্তী কোনো অফিস (যেটা তাঁর নিজস্ব দপ্তরের সাথে যুক্ত) বাজেলা শাসকের দপ্তরে বা মহকুমা শাসকের দপ্তরে হতে enrolled পারবেন।*
* পেনশনারদের enrollment হওয়ার পর সংশ্লিষ্ট অফিস সংশ্লিষ্ট ট্রেজারি অথবা ব্যাঙ্ককে Medical Allowance কাটানোর কথা জানিয়ে দেয়। তবে প্রযোজনে নিজেকে উদ্যোগ নিয়ে যাতে Medical Allowance কাটা হয় সেটা নিশ্চিত করতে হবে। Medical Allowance না কাটলে cashless facility পাবেন না।*
*• চাকরী থেকে অবসর গ্রহণ করার পর পেনশনার হিসেবে WBHS enrolled থাকতে চাইলে কোনো আবেদনের প্রয়োজন নেই।
*• একবার WBHS থেকে left out হয়ে যাবার পর দ্বিতীয় বার enrolled হতে কোনো বাধা নেই । তবে কোনো retrospective effect পাওয়া যাবে না। আবেদনের সমগ্র প্রক্রিয়াটি অনলাইন নির্ভর হলেও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী এবং পেনশনারগন চাইলে হাতে ফর্ম পুরণ করে অফিসে জমা দিতে পারবেন।*
* স্কীমটির অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর কেউ যদি WBHS এর কোনো সুবিধা ভোগ করে থাকেন তাহলে তিনি সেই মাস থেকে পরের 5 বছর WBHS থেকে opt out হতে পারবেন না।*
*Ref:- 2(5) of 7287-F dt 19.09.2008*
* বর্তমানে অনেকেই জানতে চাইছেন শশুর এবং শাশুড়ীকে এই স্কীমের আওতায় আনা যাবে কিনা। এখনও পর্যন্ত সেরকম কোনো সরকারী অনুমোদন নেই*
*Ref;- অর্থ বিভাগ কোয়ারি নং। 310 dt. 05.02.2020*
* কর্মরত কর্মচারী এবং পেনশনারদের মৃত্যুর পরেও তাদের beneficiary রা WBHS এর সমস্ত সুযোগ সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।*
28 -(F) dt 14.02.2020(CLICK HERE) আ‌দেশনামা থে‌কে বোঝা যা‌বে কে কোন category তে accommodation এ সু‌বিধা পা‌বেন ।

kamaleshforeducation.in(2023)  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *